আপনি পড়ছেন

রাশিয়ার পারমাণবিক অস্ত্রবাহী সাবমেরিন বেলগরদ বেশকিছু পসিডন টর্পেডো নিয়ে নিজস্ব ঘাঁটি ছেড়েছে বলে সদস্য দেশগুলোকে এক গোপনীয় সতর্কবার্তা পাঠিয়েছে ন্যাটো। বেলগরদ সাবমেরিন ছয় থেকে দশটি পসিডন বহন করছে জানিয়ে ন্যাটো বলেছে, একেকটি টর্পেডো তেজষ্ক্রিয় সুনামির মাধ্যমে নিউইয়র্ক ও লস অ্যাঞ্জেলেসের মতো শহর ধ্বংস করে দিতে পারে। ইতালির দৈনিক লা রিপাবলিকা এ খবর জানিয়েছে।

russia submarine twsd রাশিয়ার বেলগরদ কে-৩২৯ সাবমেরিন নিজস্ব ঘাঁটি ছেড়েছে বলে সদস্য দেশগুলোকে সতর্ক করেছে ন্যাটো

খবরে বলা হয়, প্রথমবারের মতো ন্যাটো সদর দপ্তর জোটের সদস্য দেশগুলোর জন্য গোপনীয় সতর্কবার্তা জারি করেছে। ন্যাটো গোয়েন্দারা জানতে পেরেছেন, রাশিয়ার কে-৩২৯ বেলগরদ সাবমেরিন নিজ ঘাঁটি ছেড়ে উত্তর মেরু অঞ্চলে সাগরের তলদেশে অবস্থান নিয়েছে। খুব সম্ভবত পসিডন সুপার টর্পেডো পরীক্ষার জন্য সাবমেরিনটিকে সক্রিয় করা হয়েছে।

সদস্য দেশগুলোর কাছে পাঠানো গোপনীয় বার্তায় ন্যাটো বলেছে, পসিডন মিসাইল সাগরের তলদেশ দিয়ে ছুটে ১০ হাজার কিলোমিটার পর্যন্ত দূরত্ব অতিক্রম করতে পারে। সৈকতের কাছে গিয়ে এ মিসাইল বিস্ফোরিত হয়। পসিডন মিসাইল যে পরিমাণ বিচ্ছুরণ ঘটানোর সক্ষমতা রাখে, তাতে করে উপকূলে সৃষ্ট তেজষ্ক্রিয় সুনামি পৃথিবীর যে কোনো উপকূলীয় শহরকে মাটিতে মিশিয়ে দিতে পারে।

italy la republicaপসিডন নিয়ে ন্যাটোর সতর্কবার্তার খবর দিয়েছে ইতালির লা রিপাবলিকা

বেলগরদ সাবমেরিনে ছয় থেকে দশটি পসিডন মিসাইল আছে জানিয়ে সতর্কবার্তায় বলা হয়, বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি সাধনের সামর্থ্য রাখলেও এ মূহূর্তে হয়ত পারমাণবিক ওয়ারহেড ছাড়াই পসিডন ছোঁড়া হবে। রাশিয়া পসিডন ছুঁড়ছে কিনা তা নজরদারির জন্য যুক্তরাষ্ট্র সরকার তাদের স্যাটেলাইট নেটওয়ার্ক সক্রিয় করেছে। পসিডন মিসাইল ছোঁড়ার ফলে সংশ্লিষ্ট এলাকায় যে অস্বাভাবিক রকমের তাপমাত্রা সৃষ্টি হবে, স্যাটেলাইট থেকে তা শনাক্ত করা যাবে। কিন্তু তার আগে পানির নিচ দিয়ে এসব মিসাইল কোনদিকে যাবে সেটা দেখা সম্ভব নয়।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর