আপনি পড়ছেন

পাকিস্তানের সাবেক পেসার ওয়াকার ইউনুস মন্তব্য করেছেন, কোহলির খ্যাতির কারণে আম্পায়াররা মাঝে মাঝে চাপ অনুভব করেন। ফলে তারা সে হিসেবেই মাঠে সিদ্ধান্ত দেন। বাংলাদেশের সাথে যেমন এটি ঘটেছে, পাকিস্তানের সাথে ম্যাচেও অনুরূপ ঘটনা ঘটেছে। খবর এক্সপ্রেস ট্রিবিউন।

waqar younisওয়াকার ইউনুস

গত বুধবার অ্যাডিলেডে বাংলাদেশের বিপক্ষে ভারতের ম্যাচের সময় হাসান মাহমুদের একটি শর্ট ডেলিভারিকে নো-বল ঘোষণা করেন আম্পায়ার মারাইস ইরাসমাস। সে সময় কোহলিকে আম্পায়ারের দিকে ইশারা করতে দেখা যায়। বিষয়টি নিয়ে আলোচনার সময় পাকিস্তানের তিন কিংবদন্তি পেসার ওয়াসিম আকরাম, ওয়াকার ইউনুস ও শোয়েব মালিক এমন মন্তব্য করেন। ওয়াকার ইউনুস বলেন, কোহলির খ্যাতির কারণে আম্পায়াররা মাঝে মাঝে চাপ অনুভব করেন এবং তার অনুকূলে সিদ্ধান্ত দেন।

টিম টাইগারদের অধিনায়ককে সমর্থন করে ওয়াকার বলেন, ওইসময় সাকিব কোহলিকে বলেছিলেন, তুমি তোমার ব্যাটিং করো; আম্পায়ারদের তাদের কাজ করতে দাও। আমরা এখানে যে কথাগুলো বলেছি, সে-ও একই কথা বলছে। মাঠে ওই মুহূর্তগুলোতে যদি কোহলির মতো ক্রিকেটাররা আম্পায়ারের ওপর চাপ সৃষ্টি করেন, তাহলে এতে প্রভাব পড়তে পারে।

waqar younisসাকিব ও কোহলি

এ সময় ওয়াসিম আকরাম অবশ্য কোহলিকে সমর্থন করেন। তিনি বলেন, আমি মনে করি এটা ব্যাটসম্যানের জন্য স্বাভাবিক ব্যাপার। যদি তারা বলের মধ্যে কোনো সমস্যা দেখতে পায় তাহলে আম্পায়ারকে ইশারা করে। এতে ভিন্ন কিছু নেই।

এর আগে মেলবোর্নে পাকিস্তানের সাথে ম্যাচের সময়ও এমন একটি ঘটনা ঘটেছিল। সে সময়ও ক্রিজে ছিলেন বিরাট কোহলি। শ্বাসরুদ্ধকর ভারত-পাকিস্তানের ম্যাচের ফাইনাল ওভারে আম্পায়ার মোহাম্মদ নওয়াজকে নো-বলের সংকেত দেন। পাকিস্তানের সমর্থকরা দাবি করেন, কোহলির ইঙ্গিতের পরপরই আম্পায়ার নো-বলের সংকেত দিয়েছিলেন। এতে তারা ব্যাপকভাবে ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন।