আপনি পড়ছেন

পাকিস্তানের সর্বকালের সেরা ক্রিকেটারদের একজন ইমরান খান। তার হাত ধরেই ১৯৯২ সালে প্রথমবারের মতো একদিনের বিশ্বকাপের শিরোপা জেতে এশিয়া জায়ান্টরা। এছাড়াও বাইশ গজের দীর্ঘ ক্যারিয়ারে দেশের হয়ে অসংখ্য সাফল্য পেয়েছেন ইমরান। এক সময় ক্রিকেটের সাথে যার এতো সখ্যতা ছিল, যেকোনো পরিস্থিতিতে তিনি দেশের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ দেখবেন এটাই তো স্বাভাবিক।

pakistan imran khanসাবেক অধিনায়কের পায়ে গুলি লেগেছে

সম্প্রতি দুষ্কৃতিকারীদের গুলিতে গুরুতর আহত হন ইমরান। গুলি লাগে তার পায়ে। এজন্য চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে আছেন সাবেক তারকা ক্রিকেটার। তবে অসুস্থ থাকার পরও চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাকিস্তানের শেষ চারের ম্যাচ দেখেছেন তিনি। অবশ্য হতাশ হতে হয়নি ইমরানকে। নিউজিল্যান্ডকে ৭ উইকেটের বড় ব্যবধানে পরাজিত করে শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে জায়গা করে নিয়েছে একবারের চ্যাম্পিয়নরা।

২০০৭ সালে প্রথমবারের মতো দক্ষিণ আফ্রিকায় আয়োজিত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলে পাকিস্তান সেবার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের কাছে হেরে স্বপ্নভঙ্গ হয়। পরের আসর অর্থ্যাৎ ২০০৯ সালেও ফাইনালে পা রাখে দলটি। সেবার আর বিমুখ হতে হয়নি। শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো কুড়ি ওভারের বিশ্বমঞ্চের শিরোপা জেতে পাকিস্তান।

মাঝখানে ১৩ বছর আর ফাইনালে উঠতে পারেনি পাকিস্তান। এবার নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে সে গেরো কাটিয়েছে বাবর আজম বাহিনী। উত্তরসূরিদের এমন সাফল্যে দারুণ উচ্ছ্বসিত ইমরান খান। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে দেওয়া এ বার্তায় তিনি লিখেছেন, ‘অসাধারণ জয়ের জন্য অধিনায়ক এবং গোটা দলের জন্য অনেক শুভেচ্ছা রইল।’

ম্যাচ শুরুর আগেও এক বার্তায় পাকিস্তান দলকে সাহস জুগিয়েছেন সাবেক অধিনায়ক, ‘দেশের পক্ষ থেকে বাবর আজম এবং গোটা দলের জন্য আমার দোয়া থাকল। আমরা চাই তোমরা শেষ বল পর্যন্ত লড়াই করো।’