আপনি পড়ছেন

কে জিতবেন এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শিরোপা, তা নিয়ে জল্পনা কল্পনার শেষ নেই। টুর্নামেন্টের শুরুর দিকে পাকিস্তানের যে পারফরমেন্স ছিল তাতে কেউই ভাবতে পারেনি এই দলটি ফাইনালে উঠে যাবে। তবে সব হিসেব নিকাশ উল্টে দিয়ে ফাইনালে পৌঁছেছে পাকিস্তান। এখন মাত্র আর একটা ম্যাচ বাকি। এই ম্যাচে জিতলে বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হবে পাকিস্তান। এর আগেই ১৯৯২ সালে ইমরান খানের নেতৃত্বে বিশ্বকাপজয়ী পাকিস্তান দলের সঙ্গে বাবর আজমের এই দলের তুলনা শুরু হয়ে গেছে। এমনকি ইমরানের মত বাবর আজমও পাকিস্তানের ভবিষ্যত প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন বলে মনে করছেন কেউ কেউ।

babar azam 15বাবর আজম

এদের মধ্যে ভারতীয় কিংবদন্তি সুনীল গাভাস্কারের নাম উল্লেখ করা যেতে পারে। গাভাস্কার মজা করে বলেই ফেলেছেন, তিনি পাকিস্তানের হয়ে বিশ্বকাপ জিতলে তিনিই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হবেন। স্টার স্পোর্টসকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, ‘পাকিস্তান বিশ্বকাপ জিতলে, ২০৪৮ সালে বাবর আজম পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হবেন।'    

প্রসঙ্গত, ইমরান খান ১৯৯২ সালে পাকিস্তানের হয়ে প্রথমবার বিশ্বকাপ জিতেছিলেন। ক্রিকেট থেকে অবসর নেয়ার পর রাজনীতিতে প্রবেশ করেন তিনি। ২০১৮ সালে তিনি দেশটির ২২তম প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। সে সময়ের পাকিস্তান ক্রিকেট দলের সঙ্গে বর্তমান দলের মিল খুঁজে পাচ্ছেন অনেকেই।

এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের কাছে হেরে যায় পাকিস্তান। পরবর্তীতে জিম্বাবুয়ের মত দলের কাছে হেরে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যাওয়ার আশংকায় ছিল দলটি। কিন্তু এরপরই ঘুরে দাঁড়ায় বাবর আজমের দল। ৯ নভেম্বর অনুষ্ঠিত সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডকে পরাজিত করে ফাইনালে উঠে তারা।

এদিকে দ্বিতীয় সেমিফাইনালে ভারতকে তুলোধুনা করে ফাইনালে উঠেছে ইংল্যান্ড। ১৩ নভেম্বর, রোববার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে মুখোমুখি হবে পাকিস্তান এবং ইংল্যান্ড। ১৯৯২ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপের ফাইনালটিও অবশ্য এই দুই দলের মধ্যেই অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সেই ফাইনালে বিজয়ীর বেশে মাঠ ছেড়েছিলেন ইমরান খান। এবার বারবর আজমও কি তার পূর্বসূরীর পথ অনুসরণ করতে সক্ষম হবেন? আর দুই দিনের মধ্যেই তার উত্তর পাওয়া যাবে। আর যদি তিনি বিশ্বকাপ জয় করতে পারেন, তাহলে সুনীল গাভাস্কারের ভবিষ্যদ্বাণীও হয়তো একদিন সত্য হবে।

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস