আপনি পড়ছেন

প্রযুক্তির সাথে সংশ্লিষ্ট প্রায় সব বয়সী মানুষই এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে থাকেন। এই প্ল্যাটফর্মগুলোতে যেমন পরিচিতদের যুক্ত করা যায়, তেমনি অপরিচিতদের সঙ্গেও বন্ধুত্ব করা যায় সহজেই। ফ্রেন্ডলিস্টে জমে থাকা অপছন্দের কাউকে আপনি চাইলেই আজকে আনফ্রেন্ড করতে পারেন। আজকের দিনটি যে ‘আনফ্রেন্ড দিবস’।

unfriendআজ আনফ্রেন্ড দিবস

সামাজিক যোগোযোগ মাধ্যমগুলো ‘আনফ্রেন্ড’ শব্দটি আমাদের চিনিয়েছে। ফ্রেন্ড বা বন্ধু শব্দটির সাথে আমরা অনেক আগে থেকেই পরিচিত। বলতে গেলে শত বছরের প্রচলিত একটি শব্দ।

অক্সফোর্ড ডিকশনারির ২০০৯ সালের সেরা শব্দ ছিল 'আনফ্রেন্ড'। যার সংজ্ঞা হলো- ফেসবুকের মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সাইটে কাউকে 'বন্ধু' তালিকা থেকে বাদ দেওয়া।

কৌতুক অভিনেতা জিমি কিমেল ২০১৪ সালে 'আনফ্রেন্ড ডে' প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি মনে করতেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন অনেকে বন্ধু তালিকায় যুক্ত হয়ে যান, যাদের আমরা চিনি না। এমনকি তাদের সঙ্গে আমাদের কখনো যোগাযোগও হয় না। তাই তাদের থেকে পরিত্রাণ পেতে তিনি আনফ্রেন্ড দিবসের প্রচলন করেন। কিন্তু এই দিবসটির কোনো রাষ্ট্রিয় বা প্রাতিষ্ঠানিক স্বীকৃতি নেই।

এমন অনেক ব্যক্তি আছেন যারা অনেক সময় অহেতুক ইনবেক্স মেসেজ দিয়ে বিরক্ত করেন। স্ট্যাটাসে উল্টা-পাল্টা মতামত দিয়ে থাকেন। এমন কাউকে চাইলেই আজ আনফ্রেন্ড করতে পারেন। এটাই হতে পারে আনফ্রেন্ড দিবসের সেরা উদযাপন। এতে আপনার ফ্রেন্ড লিস্ট আরও সমৃদ্ধ হবে এবং গুরুত্বপূর্ণ কাউকে যুক্ত করতে পারবেন।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর