আপনি পড়ছেন

এক ম্যাচ হেরেই বিশ্বকাপ থেকে বাদের মুখে আর্জেন্টিনা, এমনটা কি হয় কখনো? হ্যাঁ, হতে পারে, এক ম্যাচ হারার পর একই গ্রুপের মেক্সিকো ও পোল্যান্ডের ম্যাচ ড্র হওয়ায় বড় বিপদের সামনে দাঁড়িয়েছে লিওনেল মেসিরা। বলতে পারেন বাদের মুখেই। কেননা পরের রাউন্ডে যেতে হলে তাদের বাকি দুই ম্যাচ জেতা ছাড়া বিকল্প রাস্তা কম। আর দুটি ম্যাচ পর্যায়ক্রমে মেক্সিকো ও পোল্যান্ডের বিপক্ষে।

lionel messi 6আর্জেন্টিনা দল

যদিও এখনই হাল ছাড়েনি আর্জেন্টিনা। সৌদি ম্যাচের পর সংবাদ সম্মেলনে কোচ লিওনেল স্কালোনি বলেন, 'এটা হতাশার দিন, কিন্তু আমরা সবসময় বলে থাকি, জেগে ওঠো এবং এগিয়ে যাও। ম্যাচের আগে আমাদের ফেভারিট হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছিল, কিন্তু বিশ্বকাপে এই ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে। এই ম্যাচে যে ব্যাপারগুলো ভালোভাবে কাজে লাগেনি, তা নিয়ে কাজ করতে হবে।'

স্কালোনির বলছেন প্রথম গোল হজমের আগে সবকিছু তাদের পক্ষেই ছিল। 'আমি মনে করি প্রথমার্ধ আমাদেরই ছিল, কিন্তু একটি গোলই সবকিছু বদলে দিতে পারে।'

মূলত আর্জেন্টিনা এমন বিপদে পড়ার প্রধান কারণ হলো ‘আগেভাগেই দৌড়’। বল পায়ে আক্রমণে গিয়ে আর্জেন্টিনার বিশ্বকাঁপানো ফরোয়ার্ডরা সৌদি আরবের পাতা অফসাইড ফাঁদে পড়েছে বারবার।

২০ বছর আগের বিশ্বকাপে স্পেন-আয়ারল্যান্ড ম্যাচে ৯ বার অফসাইড হয়েছিলেন স্প্যানিয়ার্ড খেলোয়াড়েরা। তবে কোনো ম্যাচের প্রথমার্ধে ৭টি অফসাইড হওয়ার নজির এই প্রথম। এই ম্যাচে দুই অর্ধ মিলিয়ে মোট ১০ বার অফসাইড হয়েছেন আর্জেন্টিনার খেলোয়াড়রা। বিশ্বকাপে এক ম্যাচে সবচেয়ে বেশি অফসাইডে জড়ানোর রেকর্ড ইংল্যান্ডের।

নিজেদের পরবর্তী ম্যাচে আগামী শনিবার আর্জেন্টিনার প্রতিপক্ষ মেক্সিকো। গ্রুপের অন্য দল পোল্যান্ড। মূলত শনিবারের ম্যাচেই ঠিক হয়ে যেতে পারে আর্জেন্টিনার ভাগ্য। যদি বাকিরা খারাপ না করে তাহলেই কপাল পুড়বে দুই বারের চ্যাম্পিয়নদের।