আপনি পড়ছেন

রাশিয়া-ইউক্রেন সংঘাতের অবসানে মধ্যস্থতার জন্য তুরস্কের প্রচেষ্টা তুলে ধরে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, চলমান এই যুদ্ধ শেষ হবে আলোচনার টেবিলে। যুদ্ধক্ষেত্রে এর সমাপ্তি আসবে না। খবর আনাদোলু।

turkish foreign ministerতুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু

তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু গত বুধবার এক সম্মেলনে বলেন, আমরা মনে করি না, যুদ্ধক্ষেত্রে কোনোভাবে এই সমস্যার সমাপ্তি হবে। বরং অন্য কোনোভাবে অর্থাৎ আলোচনার টেবিলেই এর শেষ আসতে পারে। অন্যথায় দশকের পর দশক ধরে এ যুদ্ধ চলার ঝুঁকি রয়েছে। এ সময় তিনি এ সংঘাত অবসানে আঙ্কারার উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন।

আন্টালিয়া কূটনীতি ফোরামে তুরস্ক, ইউক্রেন ও রাশিয়ার মধ্যে অনুষ্ঠিত শীর্ষ পর্যায়ের ত্রিপক্ষীয় বৈঠকের দিকে ইঙ্গিত করে কাভুসোগলু বলেন, এখন মার্চের তুলনায় নতুন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ফলে এটি আরও জটিল হয়ে উঠেছে। এর সমাধান এত সহজ নয়। কিন্তু কোনোভাবেই আমাদের আশা হারানো উচিত নয়।

ukraine russian warইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ

মার্চের শেষের দিকে ইস্তাম্বুলে অনুষ্ঠিত রাশিয়ান ও ইউক্রেনীয় প্রতিনিধিদের মধ্যে পৃথক দুদিনের শান্তি আলোচনার কথা উল্লেখ করে কাভুসোগলু আরও বলেন, আসলে আমরা যখন ইস্তাম্বুলে একত্রিত হয়েছিলাম, তখন পক্ষগুলো যুদ্ধবিরতির খুব কাছাকাছি ছিল। কিন্তু হঠাৎ সবার মধ্যে কি যেন হলো, আমরা দেখলাম পক্ষগুলো আলোচনার টেবিল থেকে সরে যাচ্ছে।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে তুরস্কের ভারসাম্য নীতির গুরুত্বের ওপর জোর দিয়ে তিনি বলেন, প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান ন্যাটোর একমাত্র নেতা, যিনি তার সমানভাবে রাশিয়া ও ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টদের সাথে সাক্ষাৎ করতে সক্ষম। ন্যাটো দেশ হওয়া অর্থ এটা নয় যে, আমরা রাশিয়া বা অন্যান্য দেশের সাথে দেখা করতে পারব না। এই ভারসাম্যটি বজায় রাখা দরকার।

কাভুসোগলু এ সময় উল্লেখ করেন, শুধু এক্ষেত্রে নয়, জাতিসংঘ, অর্গানাইজেশন ফর সিকিউরিটি অ্যান্ড কো-অপারেশন ইন ইউরোপ (ওএসসিই) এবং অর্গানাইজেশন অফ ইসলামিক কো-অপারেশনের (ওআইসি) মতো সংস্থাগুলোতেও মধ্যস্থতা ইস্যুতে তুরস্ক অনেক বেশি অগ্রগামী।

যুদ্ধ পরিস্থিতিতেও এরদোয়ানের অবদানের কথা উল্লেখ করে তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এরদোয়ানের উদ্যোগে রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে একটি বন্দী বিনিময় কার্যক্রম সম্পাদিত হয়েছে। এছাড়া আঙ্কারা জাপোরিঝিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র ইস্যুতে আলোচনার ক্ষেত্রেও সহায়ক ভূমিকা পালন করেছিল।

উত্তর সাইপ্রাসের তুর্কি প্রজাতন্ত্রের (টিআরএনসি) অর্গানাইজেশন অব তুর্কিক স্টেটসের পর্যবেক্ষক সদস্য হিসেবে যুক্ত হওয়ার বিরুদ্ধে ইইউ, যুক্তরাষ্ট্র, গ্রিস ও গ্রিক সাইপ্রিয়ট প্রশাসনের প্রতিক্রিয়ার সমালোচনা করেন কাভুসোগলু। তিনি বলেন, তারা তুর্কি রাষ্ট্রগুলোকে হুমকি দিয়েছিল এবং তাদের উপর চাপ সৃষ্টি করেছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তারা দেখেছে, তুরস্ক এই ধরনের হুমকি ও চাপের কাছে আর মাথা নত করবে না।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর