আপনি পড়ছেন

নেইমার মাঠে নামার পর ফাউলের শিকার হবেন, মারত্মক ট্যাকলের শিকার হবেন। ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকারের উত্থানের পর থেকে এমন দৃশ্য নিয়মিতই দেখা গেছে। সম্প্রতি এক সমীক্ষার প্রতিবদেন অনুযায়ী ফুটবলের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশিবার ফাউলের শিকার হয়েছেন পিএসজির সুপারস্টার।

brazil coach tite and neymarতিতে এবং নেইমার

কাতার বিশ্বকাপে ‘জি’ গ্রুপের ব্রাজিল-সার্বিয়া ম্যাচে তো ফাউলের রেকর্ডই হয়ে গেল। ম্যাচে ৯ বার নেইমারকে ফাউল করেন সার্বিয়ান ফুটবলাররা। বিশ্বকাপের ইতিহাসে একটি নির্দিষ্ট ম্যাচে একজন খেলোয়াড়ের এতোবার ফাউল হওয়ার উদাহরণ আর নেই।

সেই ম্যাচে দুটি মারাত্মক ট্যাকলের শিকার হন নেইমার। যা তাকে ছিটকে দিয়েছে মাঠের বাইরে। গোড়ালিতে চোট পাওয়া এই স্ট্রাইকারকে গ্রুপপর্বের ম্যাচে আর পাবে না সেলেকাওরা। তাকে ছাড়াই আজ সুইজার‌ল্যান্ডের মুখোমুখি হবে ব্রাজিল। ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনে ঘুরে ফিরে নেইমার প্রসঙ্গটা এলো।

tite brazil 2তিতে

যেখানে প্রতিপক্ষ ফুটবলারদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন ব্রাজিল কোচ তিতে। নেইমারকে ফাউল করা বন্ধের আহ্বান তার। তিতে বলেছেন, ‘আপনি যদি ফুটবল উপভোগ করতে চান, তাহলে আপনাকে ফাউলের বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। তারা নির্দিষ্ট খেলোয়াড়কে ফাউল করে। এটাই একটা বড় সমস্যা। এটা থামানো দরকার।’

২০১৪ সাল থেকে বিশ্বকাপ ৫৩ বার ফাউল হয়েছেন নেইমার। এই তালিকায় দুইয়ে থাকা খেলোয়াড়টি অন্তত ১১টি কম ফাউলের শিকার হয়েছেন। সেখানে সার্বিয়া ম্যাচেই ৯ বার ফাউল হন নেইমার। যা তার বিশ্বকাপে খেলা নিয়েও জাগিয়ে তুলেছে আশঙ্কা। যদিও ব্রাজিল কোচের আশা, ‘আমার বিশ্বাস নেইমার এবং ড্যানিলো বিশ্বকাপ খেলবে।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর