আপনি পড়ছেন

কঠিন পথ পাড়ি দিয়ে শেষ ষোলোর টিকিট কাটতে হলো পর্তুগালকে। প্রথম ম্যাচে ঘানার সঙ্গে দাঁতে দাঁত লাগিয়ে লড়াই করে তারা। দ্বিতীয় ম্যাচেও আসে দারুণ জয়। টানা দুই জয়ে ১৫ বছর আগের স্মৃতি ফিরিয়ে আনলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোরা।

portugal 1সতীর্থদের নিয়ে রোনালদোর উচ্ছ্বাস

এর আগে ২০০৬ বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বের প্রথম দুই ম্যাচে টানা জয় পেয়ে, তৃতীয় ম্যাচের অপেক্ষা না করেই শেষ ষোলো নিশ্চিত করেছিল পর্তুগাল। ১৫ বছর পর কাতারের মঞ্চে গ্রুপ পর্বের প্রথম দুই ম্যাচে টানা জয় পেয়ে একই গন্তব্যে নোঙর করে ফার্নান্দো সান্তোসের শিষ্যরা।

সোমবার রাতে পর্তুগালের হয়ে দুটি গোলই করেন ব্রুনো ফার্নান্দেস। যতক্ষণ মাঠে ছিলেন রোনালদো চেষ্টা করেছেন গোল আদায় করে নিতে। শেষ পর্যন্ত যদিও পারেননি।

রোনালদোর জন্য এটাই শেষ বিশ্বকাপ। নিজের প্রথম ম্যাচে তিনি গড়েন বিরল এক কীর্তি। টানা পাঁচ বিশ্বকাপে গোল করা একমাত্র ফুটবলার বনে যান সিআরসেভেন। ২০০৬, ২০১০, ২০১৪, ২০১৮ সালের বিশ্বকাপের পর ২০২২ বিশ্বকাপেও গোল করেন তিনি।

ক্লাব ক্যারিয়ারের সময়টা ভালো যাচ্ছে না রোনালদোর। ক্লাবের হয়ে গোল পেতে বিলম্ব হচ্ছে তার। কোচ শুরুর একাদশেও রাখেননি ঠিকমতো। আবার সাইডবেঞ্চে বসে থাকতে হয়েছিল। কিন্তু দেশের জার্সিটা গায়ে উঠলেই নতুন এক রোনালদোর দেখা মেলে।

বদলে যান তিনি, বদলে দেন পুরো দলকে। ঘানার বিপক্ষে তার ব্যতিক্রম হয়নি। শুরু থেকে যতক্ষণ মাঠে ছিলেন প্রতিপক্ষকে ভয়ে রেখেছেন, এরপর গোল আদায় করে উদযাপনে মেতেছেন। উরুগুয়ের বিপক্ষেও চেষ্টা করেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর সাফল্যের দেখা পাননি।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর