আপনি পড়ছেন

সেন্ট্রাল আফ্রিকা রিপাবলিকের (সিএআর) বোসাঙ্গোয়া শহরে বিমান হামলা নিয়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে। দেশটির কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, প্রতিবেশী দেশ থেকে সেন্ট্রাল আফ্রিকার সেনাবাহিনী ও রাশিয়ান মিত্রবাহিনীর ওপর হামলার চেষ্টা হয়েছে। তবে প্রতিবেশী দেশ চাদ এই দাবি অস্বীকার করেছে। সিএআর ওই হামলার প্রতিশোধ নেওয়ার হুমকি দিয়ে রেখেছে। খবর দ্য ডিফেন্স পোস্ট।

russian army 6রাশিয়ান ঘাঁটিতে বিমান হামলার চেষ্টা, আফ্রিকায় উত্তেজনা

সিএআর সরকার জানিয়েছে,  রাশিয়ান সামরিক ঘাঁটি লক্ষ্য করে এবং উত্তরে বোসাঙ্গোয়া শহরে বোমা ফেলা হয়েছে। এতে কেউ হতাহত না হলেও অবকাঠামোর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। গভীর রাতে এই হামলার পর বিমানটি সিএআরের আকাশসীমা ত্যাগ করে। বিমানটি উত্তর দিকে চলে গেছে বলে দাবি তাদের।

দেশটির আঞ্চলিক জল ও বনবিভাগের পরিচালক এতিয়েন এনগুয়েরেতুম টেলিফোনে বোসাঙ্গোয়া থেকে এএফপিকে বলেন, একটি বিমান রাত ২টা ৫০ মিনিটে রাশিয়ান সেনা ঘাঁটিতে বোমাবর্ষণ করেছে। আমরা অন্তত চারটি বিস্ফোরণের শব্দ শুনেছি। কিন্তু অন্ধকারে বিমানটি দেখা যায়নি, কারণ তাতে কোনো আলো ছিলো না।

তিনি বলেন, বিস্ফোরণগুলো ভয়ঙ্কর ছিল। বাড়ির ছাদে পেরেক ও ভারী লোহার টুকরো এসে পড়ে। শহরের মেয়র পিয়েরে ডেনামগুয়ের টেলিফোনে এএফপিকে হামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। হামলাকারীদের লক্ষ্য ছিল রাশিয়ান ঘাঁটিতে বিস্ফোরণ ঘটানো।

খবরে বলা হচ্ছে, বোসাঙ্গোয়া শহরে সম্প্রতি একটি বিদ্রোহী বাহিনীর হাতে পড়ার পর চাদের সাথে সিএআরের উত্তেজনাকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়।

সিএআর বলছে, হামলা করে বিমানটি অদৃশ্য হয়ে যেতে পারে না। ঘটনা তদন্তে কাজ শুরু করেছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। ক্যামেরুনের সাথেও সিএআর এর সীমান্ত রয়েছে, তবে সেটি পশ্চিমে।

এর আগে বাঙ্গুই (সিএআর এর রাজধানী) চাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছিল, দেশটি সশস্ত্র গোষ্ঠীকে আশ্রয় দিচ্ছে। তাছাড়া সিএআরের সাবেক প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া বোজিজে এখন চাদে আশ্রয় নিয়েছেন। তিনি ২০০৩ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট ছিলেন। অভিযোগ আছে, বোজিজে চাদে অবস্থান করে সিএআর সরকারের বিরুদ্ধে অপতৎপরতা চালাচ্ছেন।

গত বছরের মে মাসে একটি সীমান্ত চৌকিতে ছয়জন চাদিয়ান সেনা নিহত হয়। এই হত্যাকাণ্ডে সিএআরের বিরুদ্ধে চাদ যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ আনে। ২০২১ সালের ডিসেম্বরেও একটি সেনা সংঘাত সৃষ্টি হয় দুদেশের মধ্যে।