আপনি পড়ছেন

ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লির একটি বিখ্যাত হাসপাতালের সার্ভার বিকল করে বড় অংকের টাকা দাবি করেছে হ্যাকাররা। বিষয়টি নিয়ে তদন্তে নেমেছে স্থানীয় পুলিশ, কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি দল। তবে এক সপ্তাহ পার হয়ে গেলেও পরিস্থিতির তেমন কোনো উন্নতি হয়নি। খবর হিন্দুস্তান টাইমসের।

delhi aiims hospitalনয়াদিল্লির এমস হাসপাতাল

সম্প্রতি দিল্লির প্রসিদ্ধ এমস হাসপাতালের সার্ভারে হামলা চালায় হ্যাকাররা। এতে হাসপাতালের সমস্ত সার্ভার অচল হয়ে পড়ে। একটি সূত্র বলছে, সার্ভার আগের অবস্থায় ফিরিয়ে দেওয়ার বিনিময়ে হ্যাকারা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে ২০০ কোটি রুপি দাবি করেছে। সেই সঙ্গে শর্ত দেওয়া হয়েছে, এই অর্থ দিতে হবে ক্রিপ্টোকারেন্সিতে।

এমস হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ গত ২৩ নভেম্বর সকালে প্রথম সার্ভার বিকল হওয়ার বিষয়টি জানতে পারে। তারপর থেকে তারা তাদের সার্ভার পুনরুদ্ধারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তারা আশঙ্কা করছে, হ্যাকারদের এই হামলার কারণে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, আমলা, বিচারপতি মতো ভিভিআইপিসহ তাদের ৩-৪ কোটি রোগীর তথ্য বেহাত হয়ে যেতে পারে। এ তথ্য নানা ধরনের অপকর্মে ব্যবহার করতে পারে হ্যাকাররা।

দিল্লি পুলিশের ইন্টেলিজেন্স ফিউশন অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক অপারেশন (আইএফএসও) শাখা গত ২৫ নভেম্বর সাইবার সন্ত্রাস ও অর্থ হাতানোর একটি মামলা দায়ের করেছে। বিষয়টি তদন্তে নেমেছে দিল্লি পুলিশ, কম্পিউটার ইমার্জেন্সি রেসপন্স টিম ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি দল।

এদিকে তদন্তকারীদের সুপারিশে হাসপাতালের সব কম্পিউটারের ইন্টারনেট সুবিধা বন্ধ রাখা হয়েছে। জরুরি বিভাগ, ল্যাবরেটরিসহ হাসপাতালে যাবতীয় কাজ ও পরিষেবা এখন চলছে খাতাকলমে। তবে অনলাইনের রোগীদের জন্য নতুন করে চারটি সার্ভারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এমস হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, পুরো হাসপাতালে মোট পাঁচ হাজার কম্পিউটার রয়েছে। এর মধ্যে এক হাজার ২০০ কম্পিউটারে অ্যান্টিভাইরাস বসানো হয়েছে। পঞ্চাশটি সার্ভারের মধ্যে বিশটি স্ক্যান করা হয়েছে। নেটওয়ার্কের সংস্কারের কাজও চলছে। তবে সব কাজ শেষ হতে আরও চার-পাঁচদিন লেগে যেতে পারে। তখনই এর সার্বিক অবস্থা বোঝা যাবে।