আপনি পড়ছেন

ঢাকায় জনঘনত্বের চাপ কমাতে আরেকটি উপশহর গড়তে যাচ্ছে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)। রাজধানীর কেরানীগঞ্জে ৪ হাজার ৭০০ একর ভূমি নিয়ে গড়ে উঠবে এ শহর। ২৫ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে এই প্রকল্প বাস্তবায়নে এরইমধ্যে কার্যক্রম শুরু হয়েছে। 

rajuk building 1রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ

জানা গেছে, উন্নত বিশ্বের শহরের মানদণ্ড মাথায় রেখে আন্তর্জাতিক মানের শহর গড়ার ভাবনায় এগোচ্ছে রাজউক। নতুন এ উপশহরে থাকবে একটি বিশ্বমানের হাসপাতাল, অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্র্রিজ, ওয়্যার হাউস ও ব্যাংকপাড়া। উপশহরটিতে সাড়ে ৫ লাখ লোকের কর্মসংস্থানও হবে। এক একটি ভবনের উচ্চতা হবে কমপক্ষে ২০ তলা। ২০ শতাংশ জায়গা রাখা হবে গ্রিন স্পেস ও জলাভূমি হিসেবে। এছাড়া মাঠ, বাজারসহ সব সুযোগ-সুবিধা থাকবে এই উপশহরে। বিজনেস হাব হিসেবে এ উপশহর গড়ে তুলবে রাজউক। 

এ বিষয়ে রাজউক চেয়ারম্যান মো. আনিছুর রহমান মিঞা গণমাধ্যমকে বলেন, রাজউক নতুন একটি প্রকল্প হাতে নিতে যাচ্ছে। এরইমধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মৌখিক নির্দেশনা পেয়ে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের কাজ শুরু হয়েছে। কেরানীগঞ্জে ঝিলমিল প্রকল্পের অদূরে ৪ হাজার ৭০০ একর ভূমি নিয়ে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে। এখন সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের কাজ চলছে। এরপর উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) চূড়ান্ত করা হবে।

তিনি বলেন, আগামী ৬ মাস পর জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (একনেক) সভায় প্রস্তাবটি অনুমোদনের জন্য পাঠানো পরিকল্পনা হয়েছে। সেখানে অনুমোদন পেলে ভূমি অধিগ্রহণের জন্য প্রস্তাব পাঠানো হবে। এক বছরের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শুরু হবে।

উপশহরে কতগুলো ব্লক হবে সেগুলো পরে চূড়ান্ত হবে বলে জানান রাজউক চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, উন্নত দেশের শহরগুলো যেভাবে গড়ে উঠেছে, তার থেকে ভালো আয়োজন থাকবে সেখানে। তাতে এককভাবে কাউকে প্লট দেওয়া হবে না। এক বিঘার প্লট হলে ৪ জনকে দেওয়া হবে। দুই বিঘার প্লট হলে ৮ জন পাবেন। এটা করতে পারলে দেখা যাবে কোনো প্লট যদি ১২ জনকে দেওয়া হয় তাহলে সেই প্লটে সুউচ্চ ভবন বানাতে পারবেন তারা। প্রকল্প এলাকার ভেতরে খেলার মাঠ করতে পারবেন। এটি আর্ন্তর্জাতিক মানের উপশহর হবে বলে আশা করেন তিনি।