আপনি পড়ছেন

ভিয়েনায় আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোতে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি মিখাইল উলিয়ানভ চীন, ইরান ও রাশিয়াকে বহু মেরুকেন্দ্রিক কূটনীতির বিপরীতে একটি ‘নয়া ট্রায়াঙ্গেল’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। আজ বৃহস্পতিবার সকালে নিজের অফিসিয়াল টুইটার পেজে এক পোস্টে তিনি এ মন্তব্য করেন। খবর ডেইলি মেইল।

china iran russiaচীন, ইরান ও রাশিয়া

পোস্টে ভিয়েনায় অনুষ্ঠিত চীন ও ইরান ও রাশিয়ার কূটনৈতিক প্রতিনিধিদলের একটি বৈঠকের ছবি প্রকাশ করে উলিয়ানভ বলেন, চীন, ইরান ও রাশিয়াকে বহুপাক্ষিক কূটনীতির নয়া ট্রায়াঙ্গেল মনে হচ্ছে না? পরে তিনি মন্তব্য করেন, খুব সহজেই এই কাঠামোটি অনেক বড় হওয়ার সুযোগ রয়েছে।

তিনি বলেন, যদি যদি বিশ্বের বেশিরভাগ দেশের কথা নাও বলি, তারপরও বিশ্বের অনেক দেশ এখন বহু মেরুকেন্দ্রিক বিশ্বব্যবস্থা দেখতে চায়। বর্তমান বিশ্বে চলমান কোনো একক দেশের আধিপত্যের ঘোর বিরোধী তারা।

mikhail ulyanovমিখাইল উলিয়ানভ

রাশিয়ার এই সিনিয়র কূটনীতিক এর আগেও বৈশ্বিক আগ্রাসী আচরণের সমালোচনা করেছিলেন। এক টুইট বার্তায় তিনি রাশিয়ার তেল-গ্যাসের দাম নির্ধারণ করে দেxয়ার প্রচেষ্টার সমালোচনা করে বলেছিলেন, এ ধরনের সর্বগ্রাসী আচরণ কোনো ইতিবাচক কোনো ফল বয়ে আনবে না।

সম্প্রতি বালিতে জি-২০ সম্মেলনের ফাঁকে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের সাথে এক বৈঠকে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই বলেছিলেন, বিশ্বের এককেন্দ্রিকতা বিলুপ্ত করতে মস্কোসহ অন্য আগ্রহী দেশগুলোর সাথে কাজ করতে প্রস্তুত বেইজিং।

এর আগে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন আন্তর্জাতিক সম্পর্ককে হালনাগাদ করার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে বক্তব্য দিয়েছিলেন। সেখানে তিনি একটি পরিবর্তনশীল বিশ্ব ব্যবস্থার গড়ে তুলতে আন্তর্জাতিক নেতৃত্বের প্রতি আহ্বান জানান।

রাজনীতি বিশেষজ্ঞরা বলেন, খুব দ্রুত মার্কিন নেতৃত্বাধীন এক মেরুকেন্দ্রিক বিশ্বব্যবস্থার অবসান হতে যাচ্ছে। তাদের এই সর্বগ্রাসী আচরণের বিপরীতে একটি বহু মেরুকেন্দ্রিক বিশ্বব্যবস্থা প্রতিষ্ঠায় ইরান, রাশিয়া ও চীন এগিয়ে আসছে। ফলে নতুন একটি ট্রায়াঙ্গেলের সূচনা হচ্ছে, যা ভবিষ্যতে বৈশ্বিক কূটনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর