আপনি পড়ছেন

রাশিয়া আরও ভয়াবহ ও ব্যাপক হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে ইউক্রেনের এক সামরিক কর্মকর্তা সতর্ক করেছেন। তিনি বলেছেন, ইউক্রেনের গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামোতে আরও বড় হামলার পরিকল্পনা করছে রাশিয়া। যেকোনো দিন এই হামলা হতে পারে। কারণ দুই সপ্তাহ হামলা নেই। এটি ঝড়ের পূর্বলক্ষণ। খবর টিআরটি ওয়ার্ল্ড।

ukrainian army 1দুই সপ্তাহ হামলা নেই, ঝড়ের পূর্বলক্ষণ মনে করছে ইউক্রেন

ওই কর্মকর্তা হলেন ইউক্রেনের দক্ষিণ প্রতিরক্ষা বাহিনীর মুখপাত্র নাটালিয়া গুমেনিউক। তিনি ইউক্রেনের চ্যানেল২৪কে এ তথ্য দিয়েছেন। তিনি জানান, আমরা বুঝতে পারছি একটি বড় ঝড় আসছে। ইউক্রেনের গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো দাঁড়িয়ে থাকুক তা চাচ্ছে না রাশিয়া। এজন্য যেকোনো সময় ব্যাপক হামলা শুরু হতে পারে। তারা দিন বা রাত দেখবে না। শত্রুরা ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়েই যায়। এর প্রস্তুতি হিসেবে স্থানীয়দের সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

নাটালিয়া বলেন, প্রায় দুই সপ্তাহ রাশিয়া কোনো হামলা চালায়নি। এটা ঝড় ওঠার পূর্বলক্ষণ। যেকোনো সময় এই বিরতি শেষে ধ্বংসযজ্ঞ নেমে আসতে পারে। ইউক্রেনীয় সামরিক বাহিনী বিদ্যুৎকেন্দ্রসহ গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামোগুলোতে সুরক্ষা বাড়ানোর কাজ করছে। আমরা জনগণকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছি।

এদিকে রাশিয়ার জন্য নিরাপত্তার গ্যারান্টি বিবেচনা করার কথা বলায় ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রন ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন। ম্যাক্রনের পরামর্শ ছিল, পশ্চিমের উচিত রাশিয়ার নিরাপত্তা গ্যারান্টির প্রয়োজনীয়তার কথা বিবেচনা করা। ম্যাক্রনের এই মন্তব্যের ইউক্রেন ও বাল্টিক রাষ্ট্রগুলো থেকে সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়।

ফরাসি টিভি স্টেশন টিএফ১ এর সাথে এক সাক্ষাৎকারে ম্যাক্রন বলেন, ইউরোপকে নিজ ভবিষ্যৎ সুরক্ষা প্রস্তুত করতে হবে। রাশিয়া যেদিন আলোচনার টেবিলে ফিরে আসবে, সেদিন রাশিয়ার নিরাপত্তা গ্যারান্টি কিভাবে দেওয়া যায়, তা নিয়ে ভাবা উচিত।

অপরদিকে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি আসছে শীতের কঠোরতা প্রতিরোধে জনগণকে ধৈর্যশীল ও মনোবল শক্ত করার আহ্বান জানিয়েছেন। কারণ কিয়েভ এখন তীব্র বিদ্যুৎ সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে এবং বিভিন্ন পরিষেবা বন্ধ রয়েছে। জনগণকে উদ্ধার করতে জেলেনস্কি প্রশাসন প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।