আপনি পড়ছেন

জার্মান সরকার যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে এফ-৩৫ কেনার পরিকল্পনা করেছে আগেই। তবে সম্প্রতি দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এই পরিকল্পনায় ১০ বিলিয়ন ইউরো খরচের ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। তাছাড়া যুদ্ধবিমান কেনার পর এর দেখভাল এবং রক্ষণাবেক্ষণের খরচ নিয়েও কথা তুলেছে মন্ত্রণালয়। খবর দ্য ডিফেন্স পোস্ট।

 f 35 jetএফ-৩৫ যুদ্ধবিমান কিনছে জার্মানি, খরচ নিয়ে উদ্বেগ

এ ব্যাপারে এএফপির কাছে একটি নথি এসেছে। নথিতে জানা গেছে, জার্মান সামরিক বাহিনীকে আরও আধুনিকীকরণ করতেই এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান ক্রয়ের পরিকল্পনা করা হয়েছে। তবে দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় খরচ নিয়ে চিন্তিত। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সংসদীয় বাজেট কমিটির কাছে একটি চিঠিতে এই উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

এর আগে গত সপ্তাহে জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ স্কোলজ বলেছিলেন, তিনি বিশ্বের সবচেয়ে আধুনিক যুদ্ধবিমান কিনতে চান। এজন্য জার্মানি এই বছরের শেষ নাগাদ চুক্তি চূড়ান্ত করবে। গত মার্চ মাসে বার্লিন জানায়, ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের পরিপ্রেক্ষিতে ৩৫টি যুদ্ধবিমান তারা বহরে যুক্ত করতে চায়। এক্ষেত্রে নতুন বরাদ্দ ১০০ বিলিয়ন ডলার থেকে এই প্রকল্পে কাজে লাগানো হবে। তবে এর মধ্যে কতটি এফ-৩৫ তা উল্লেখ নেই।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দাবি, যুদ্ধবিমানগুলো শুধু কিনলেই হবে না। এগুলোর রক্ষণাবেক্ষণ দরকার। সেক্ষেত্রে খরচ আরও বাড়বে। তাছাড়া জার্মানি ফ্লাইট পরিচালনায় নানা সমস্যার মুখে পড়তে পারে।

মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বলেন, সংসদীয় কমিটির সাথে ব্যাপারগুলো নিয়ে আজ সোমবার একটি আলোচনা হবে এবং তাতে আরও স্পষ্ট ধারনা ও সিদ্ধান্ত উঠে আসবে। বৈঠকে বাজেট কমিটির কর্মকর্তারাও যোগ দেবেন। আগামী ১৪ ডিসেম্বর যুদ্ধবিমান কেনার ব্যাপারে প্রথম ধাপের বাজেটের বিষয়টি প্রকাশ করা হবে।

ওই নথিতে বলা হয়েছে, এফ-৩৫ যুদ্ধবিমানগুলো বুচেল বিমানঘাঁটিতে রাখা হবে এবং সেগুলোর রক্ষণাবেক্ষণে কার্যক্রম শুরু হবে। সবগুলো যুদ্ধবিমান একসাথে পাওয়া যাবে না। ধাপে ধাপে সেগুলো গ্রহণ করা হবে। সবগুলো হাতে পেতে জার্মানির ২০২৬ সাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। প্রকল্পটি অত্যন্ত উচ্চাভিলাষী। তাছাড়া এই যুদ্ধবিমান পরিচালনায় নানা বিধিনিষেধও মানতে হয়। সেটা জার্মানির জন্য আরও কঠিন।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর