আপনি পড়ছেন

একইদিনে রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর দুটি বিমানঘাঁটিতে ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটেছে। এতে বেশ কয়েকজন হতাহত হয়েছে। তবে এ বিস্ফোরণে নেপথ্যে ইউক্রেনের কোনো হাত রয়েছে কিনা, তা নিয়ে জল্পনা দেখা দিয়েছে। যদিও এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি কিয়েভ সরকার। খবর বিবিসি।

russia blast airfieldরাশিয়ার একটি বিমানঘাঁটিতে শক্তিশালী বিস্ফোরণ

ইউক্রেনে গত নয় মাসের বেশি সময় ধরে একতরফা যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে রাশিয়া। আগ্রাসনের শিকার ইউক্রেনের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত রাশিয়ার অভ্যন্তরে কোনো হামলা হয়েছে কিনা, তা সুনিশ্চিত নয়।

এরইমধ্যে রাশিয়ার দুটি আলাদা বিমানঘাঁটিতে আজ সোমবার (৫ ডিসেম্বর) যুগপৎ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটলো।

জানা গেছে, মস্কোর দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় শহর রিয়াজানের একটি বিমানঘাঁটিতে তেল ট্যাংকার বিস্ফোরিত হয়েছে। এতে তিনজন নিহত ও আরও ছয়জন আহত হয়েছেন। হতাহতরা সেনাসদস্য কিনা, সেটি প্রকাশ করা হয়নি।

এদিকে সাতারভ অঞ্চলের এঙ্গেলস বিমানঘাঁটিতে বিস্ফোরণে আরও দুজন আহত হয়েছে। এ বিমানঘাঁটিতে রাশিয়ার কৌশলগত দূরপাল্লার বোমারু বিমান রাখা আছে।

ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ জানান, দুটি বিমানঘাঁটিতে এমন বিস্ফোরণের বিষয়ে প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে অবহিত করা হয়েছে।

কী কারণে এ বিস্ফোরণ ঘটলো, এমন প্রশ্নের জবাবে পেসকভ জানান, এ বিষয়ে খতিয়ে দেখা হচ্ছে, এখনো আমার কাছে কোনো তথ্য নেই।

এদিকে বিস্ফোরণের কারণ খতিয়ে দেখছে রুশ কর্তৃপক্ষ। সাতারভ অঞ্চলের গভর্নর রোমান বুসারজিন বলেন, রুশ নিরাপত্তা বাহিনী বিমানঘাঁটিতে বিস্ফোরণের ঘটনা খতিয়ে দেখছেন।

তবে জল্পনা জোরদার হয়েছে যে, এই বিস্ফোরণে পেছনে ইউক্রেনের কোনো হাত রয়েছে কিনা। যদিও বিস্ফোরণের শিকার বিমানঘাঁটি দুটি ইউক্রেন সীমান্ত থেকে কয়েক শত কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।

মস্কোতে বিবিসির সাংবাদিক স্টিভেন রোজেনবার্গ বলেন, দুটি সামরিক স্থাপনায় বিস্ফোরণ জল্পনা চাগিয়ে দিয়েছে যে ইউক্রেন এসবের পেছনে থাকতে পারে।

এসব জল্পনাকে উড়িয়ে দিয়ে রুশ প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা মিখাইলো পোডোলিয়াক বলেন, এ বিস্ফোরণের ঘটনার সঙ্গে অন্য কোনো দেশের কোনো যোগসূত্র থাকলে আগে বা পরে জানামাত্র একই জবাব দেওয়া হবে।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর