আপনি পড়ছেন

গ্রুপপর্বের শেষ ম্যাচে বেঞ্চের খেলোয়াড়দের নামিয়ে হারের মুখ দেখেছেন ব্রাজিল কোচ টিটে। সোমবার রাতে শেষ ষোলোর ম্যাচে যথারীতি পূর্ণশক্তির দলই মাঠে নামিয়েছেন তিনি। একাদশে ফিরেছেন প্রাণভোমরা নেইমার জুনিয়রও। সম্ভাব্য সেরা দল নিয়ে প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে বেশ উজ্জীবিত পারফরম্যান্স করল ব্রাজিল।

neymar raphinha lucas paquetaগোলের পর ব্রাজিলের উল্লাস

তাতে বিধ্বস্ত এশিয়ান জায়ান্ট দক্ষিণ কোরিয়া। তুলনামূলক খর্বশক্তির দলকে ৪-১ গোলে উড়িয়ে নেইমার অ্যান্ড কোং উঠলেন কোয়ার্টার ফাইনালে। দুই ম্যাচ মিস করা নেইমার ফিরেই খুঁজে নিয়েছেন জালের ঠিকানা। গোল করলেন ভিনিচিয়াস জুনিয়র, লুকাস পাকুয়েতা, রিচার্লিসনও। ব্রাজিল পেল বড় জয়। এই জয়ে সবাইকে কড়া একটা বার্তা দিয়ে রাখল তারা।

দোহার স্টেডিয়াম ৯৭৪-এ শেষ ষোলোর ষষ্ঠ ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণ হয়ে গেছে আধ ঘণ্টার মধ্যেই। এরই মধ্যে তিনবার ব্রাজিলের গোল উৎসব হয়ে গেছে। সাত মিনিটে নেইমারের পাস থেকে ভিনিচিয়াসের দুর্দান্ত গোলে লিড নেয় ব্রাজিল। ১৩ মিনিটে পেনাল্টি থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন নেইমার। রিচার্লিসন ডি-বক্সে ফাউল হলে পেনাল্টি পায় ব্রাজিল।

স্পট কিক থেকে প্রত্যাশিতভাবেই গোল করেন নেইমার। ব্রাজিলের জার্সিতে এটা পিএসজি সুপারস্টারের ৭৬তম গোল। আর এক গোল করলেই সেলেকাওদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ গোলদাতা পেলেকে ছুঁয়ে ফেললেন নেইমার। এই গোলের উচ্ছ্বাসের রেশ কাটতে না কাটতেই ফের উদযাপনের উপলক্ষ্য পায় ব্রাজিল। এবার গোল করেন পাকুয়েতা। খানেক বাদেই রিচার্লিসনের নিশানাভেদ।

এই গোলের কয়েক মুহূর্ত আগে রিচার্লিসনের ডিবল ও সর্তীদের সঙ্গে পাস দেওয়া-নেওয়ার প্রদর্শনীটা দারুণ উপভোগ্য হয়ে উঠেছিল। ৪ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় ব্রাজিল। কিন্তু বিরতির পর মাঠে আর চেনারূপে দেখা গেল না। এ সময়ে মুহুর্মুহু আক্রমণ করলেও পঞ্চমবার আর জালের নাগাল পায়নি হলুদ শিবির। গোল মিসের মহড়া বসায় ব্রাজিল। যদিও তাতে কোনো ক্ষতি হয়নি তাদের। বড় জয়েই খুশি তারা।

প্রথমার্ধে খড়কুটোর মতো উড়ে যাওয়া দক্ষিণ কোরিয়ার দ্বিতীয়ার্ধে ভালোই লড়াই করেছে ব্রাজিলের সঙ্গে। এই অর্ধে সেলেওকাও গোলরক্ষক অ্যালিসন বেকারের ভালোই পরীক্ষা নিয়েছে কোরিয়ার আক্রমণভাগ। শেষ পর্যন্ত আসরে প্রথম গোল হজম করতে হলো লিভারপুল তারকাকেও।

৭৬ মিনিটে পাইক সিয়ুং-হুর দূর পাল্টার দারুণ এক শটে ব্যবধান কমায় কোরিয়া। এশিয়ানরা আরও গোল পেতে পারতো। কিন্তু ফিনিশিং দুর্বলতা এবং অ্যালিসন বীরত্বের কারণে সেটা হয়নি। ম্যাচের শেষ দিকে গোলরক্ষকেও পাল্টে ফেলেন টিটে। মাঠে নামেন ওয়েভারটন। এরই মধ্য দিয়ে তিন গোলরক্ষককে খেলানো হয়ে গেল ব্রাজিল কোচের।

আগামী শুক্রবার সেমিফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া। যারা কিনা শেষ ষোলোর আগের ম্যাচে টাইব্রেকে জাপানকে হারিয়েছে। জাপান অন্তত লড়াই করেছে, কিন্তু কোরিয়ানরা ন্যূনতম প্রতিরোধও গড়তে পারেনি। ব্রাজিলের সাম্বা ঝড়ে স্রেফ উড়ে গেছে তারা। কোরিয়ার এই হারের মধ্য দিয়ে শেষ হয়ে গেল এশিয়ানদের বিশ্বকাপ।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর