আপনি পড়ছেন

জার্মানিতে ক্যু ঘটিয়ে সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করে দিয়েছে আইনশৃঙ্খলাবাহিনী। অভ্যূত্থানের ষড়যন্ত্রের অভিযোগে দেশজুড়ে অভিযান চালিয়ে আজ বুধবার অন্তত ২৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতরা দেশীয় সন্ত্রাসী সংগঠনের সদস্য। খবর বিবিসি ও ডয়চে ভেলে।

germany raid arrestসরকারবিরোধী অভ্যূত্থানকারীদের গ্রেপ্তারে জার্মান পুলিশের অভিযান

জার্মানির গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, কট্টর ডানপন্থী ও সামরিক বাহিনী থেকে অবসরপ্রাপ্ত কিছু ব্যক্তি মিলে পার্লামেন্ট ভবন রাইখসট্যাগে হামলা এবং ক্ষমতা দখলের ছক কষেছিল।

নিজেকে প্রিন্স পরিচয় দেওয়া হেনরিখ-তের নামে ৭১ বছর বয়সী এক ব্যক্তি এই ষড়যন্ত্রের মূল পরিকল্পনাকারী বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এরপরই দেশজুড়ে অভিযান চালায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

ফেডারেল প্রসিকিউটর সূত্র জানিয়েছে, জার্মানির ১১টি রাজ্যে অভিযান চালিয়ে অন্তত ২৫ জনকে ষড়যন্ত্রে যুক্ত থাকার অভিযোগে আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে দু’জন কথিত রিংলিডার রয়েছেন।

দেশটির বিচারমন্ত্রী মারকো বুশম্যান বলেন, গ্রেপ্তারকৃতরা রাইখসবার্গার চরমপন্থীদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বলেই ধারণা করা হচ্ছে।

জানা গেছে, ষড়যন্ত্রকারীদের মধ্যে চরমপন্থী রাইখসবার্গার (রিখের নাগরিক) আন্দোলনের সদস্যরা রয়েছেন। এই গোষ্ঠীটি দীর্ঘদিন ধরে সহিংস আক্রমণ এবং বর্ণবাদী ষড়যন্ত্র তত্ত্বের জন্য জার্মান পুলিশের নজরদারিতে রয়েছে।

আধুনিক জার্মান রাষ্ট্রকে স্বীকৃতি দিতে অস্বীকার করে থাকে রাইখসবার্গাররা। এই গোষ্ঠীর আনুমানিক ৫০ জন পুরুষ ও নারী বর্তমান জার্মান প্রজাতন্ত্রকে উৎখাত করার ষড়যন্ত্রে জড়িত হয়। তারা নতুন জার্মান রাষ্ট্রের বদলে ১৮৭১ সালের জার্মানিকে পুন:প্রতিষ্ঠা করতে চায়।

ফেডারেল প্রসিকিউটর কার্যালয়ের এক মুখপাত্র বলেন, আমরা এখনো এই গ্রুপের সুনির্দিষ্ট নাম জানতে পারিনি।