আপনি পড়ছেন

সিরিজে টিকে থাকতে চাইলে জেতার কোনো বিকল্প ছিল না ভারতের জন্য। সেটা করে দেখাতে পারেনি রোহিত শর্মা বাহিনী। জমে উঠা ম্যাচে সফরকারীদের ৫ রানে হারিয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে লাল সবুজের বাংলাদেশ।

bangladesh team 7টানা দ্বিতীয় জয় পেয়েছে টাইগাররা

মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আগে ব্যাট করতে নেমে স্কোরবোর্ডে ২৭১ রান তোলে টাইগাররা। লক্ষ্য তাড়ায় ভারতের ইনিংস থেমেছে ২৬৬ রানে। ভারতের এ হারে তৃতীয় তথা সিরিজের শেষ ওয়ানডে ম্যাচটি শুধুই আনুষ্ঠানিকতায় রূপ নিলো।

চ্যালেঞ্জিং পুঁজি তাড়া করতে নেমে ভারতের শুরুটা ভালো হয়নি। দলীয় ৩৯ রানেই সাজঘরে ফিরে যান বিরাট কোহলি, শিখর ধাওয়ান ও ওয়াশিংটন সুন্দর। চতুর্থ উইকেটে লোকেশ রাহুলকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেন শ্রেয়াশ আইয়ার। মিরাজের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়ে ১৪ রানের বেশি করতে পারেননি রাহুল।

রাহুল ফিরে যাওয়ার পর আকসার প্যাটেলকে নিয়ে ইনিংস মেরামতের দায়িত্ব নেন আইয়ার। এই জুটির ১০৭ রান স্বাগতিকদের বুকে কাঁপন ধরিয়ে দেয়। ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠা আইয়ারকে ফিরিয়ে মাথার ওপর থেকে বিপদ নামান মিরাজ। ৮২ রান করেন আইয়ার। সঙ্গী হারিয়ে আর বেশিদূর আগাতে পারেননি প্যাটেল। ব্যক্তিগত ৫৬ রানে এবাদত হোসেনের বলে সাকিবের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি।

২৩ বলে ৭ রান করে ফিরে যান শার্দুল ঠাকুর। বাংলাদেশের ইনিংস চলাকালীন আঘাত পেয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন রোহিত। সুস্থ হয়ে ব্যাটিংয়ে নামেন অধিনায়ক। ক্রিজে এসে শুরু থেকেই ছিলেন আগ্রাসী। একের পর এক ছয় মেরে ম্যাচ জমিয়ে তোলেন হিটম্যান। তবে শেষ বলে ছয় রানের সমীকরণ না মেলাতে পারায় পরাজয় এড়াতে পারেননি। ২৮ বলে ৫১ রানে অপরাজিত থাকেন রোহিত।

এর আগে বাংলাদেশ ২৭১ রান সংগ্রহে বড় অবদান রাখেন মেহেদি হাসান মিরাজ ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। এ দুজনের মধ্যে তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগারের দেখা পেয়েছেন মিরাজ। ক্যারিয়ারের প্রথম ওয়ানডে সেঞ্চুরি হাঁকাতে ৮৩ বল খেলেন তিনি। আট চার এবং চার ছয়ের সাহায্যে ১০০ রানে অপরাজিত থাকেন এই অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার।

অথচ বাংলাদেশের শুরুটা ছিল খুবই দুর্বিষহ। ৬৯ রান করতেই প্রথম সারির ছয় ব্যাটসম্যানকে হারায় স্বাগতিকরা। সপ্তম উইকেটে রিয়াদকে সাথে নিয়ে ১৪৮ রানের জুটি গড়েন মিরাজ। উমরান মালিকের শিকার হওয়ার আগে ৭৭ রান করেন রিয়াদ। অষ্টম উইকেটে নাসুম আহমেদের সাথে ৫৪ রানের আরও একটি জুটি গড়েন মিরাজ। ১০ বলে ১৮ রানে অপরাজিত থাকেন নাসুম। এছাড়া তিন নম্বরে ব্যাট করতে নেমে ২১ রান করেন নাজমুল হোসেন শান্ত।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর