ফুটবলের ইতিহাসে পাগলাটে যতো ফুটবলার আছেন তাদের তালিকা তৈরি করলে লুইস সুয়ারেজের নামটা ওপরের দিকেই থাকবে। তার প্রতিভা এবং সামর্থ্য নিয়ে কখনো প্রশ্ন না উঠলেও উদ্ভট কর্মকাণ্ডের জন্য বরাবরই আলোচিত-সমালোচিত সুয়ারেজ। কেন তাকে ঘিরে এত কাঁটাছেড়া? কেনই বা সুয়ারেজ আট-দশটা ফুটবলারদের চেয়ে আলাদা? এসব প্রশ্নের উত্তরে তার দশটি অঘটন তুলে ধরা হলো:

luis suarez patrice evra

১. সুয়ারেজের চুল-কাহিনী: ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড-লিভারপুল বিগ ম্যাচ চলছিল। কিন্তু হঠাৎ করেই একটি ফাউলকে কেন্দ্র করে দুই দলের ফুটবলারদের মধ্যে লেগে যায় বিবাদ। তখন ম্যানইউ ডিফেন্ডার রাফায়েলের চুলে হাত দেন লিভারপুল স্ট্রাইকার সুয়ারেজ। এরপরই উরুগুয়েন স্ট্রাইকার লম্বা চুলওয়ালা রাফায়েলকে বলে বসলেন, ‘তোমার চুল আমাকে দাও।’ সেই ম্যাচের ফল ছাপিয়ে পাদ প্রদীপে উঠে এসেছে সুয়ারেজের এমন মন্তব্য।

২. ফুলহাম দর্শকদের মধ্যাঙ্গুলি প্রদর্শন: ২০১১ সালের ডিসেম্বরে গ্যালারিতে থাকা ফুলহাম সমর্থকদের মধ্যাঙ্গুলি প্রদর্শন করেন সুয়ারেজ। ফুলহামের মাঠে ১-০ গোলে হার ও প্রতিপক্ষ সমর্থকদের গগনবিদারী চিৎকার সহ্য করতে না পেরে ওই কাণ্ড ঘটান সুয়ারেজ। অপ্রত্যাশিত এমন কাণ্ডে ঝড় ওঠে ইংলিশ ফুটবলে। উরুগুয়েন স্ট্রাইকারকে দেওয়া হয় এক ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা।

৩. বর্ণবিদ্বেষ ও হ্যান্ডশেকে অস্বীকৃতি: ইংলিশ ফুটবলের ঐতিহ্যবাহী লড়াইগুলোর মধ্যে অন্যতম লিভারপুল-ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড মহারণ। এই মহারণে এমনিতেই তেঁতে থাকেন দুই দলের ফুটবলাররা। এমনই একটি ম্যাচে ম্যানইউর ফরাসি ডিফেন্ডার প্যাটট্রিক এভরাকে ‘কালো কুৎসিত বানর’ বলে আখ্যা দেন সুয়ারেজ। বর্ণবিদ্বেষমূলক এমন কাণ্ডে আট ম্যাচ নিষিদ্ধ হন সুয়ারেজ। ফুলহাম দর্শকদের মধ্যাঙ্গুলি প্রদর্শনের কয়েক দিনের মাথায় এই কাণ্ড ঘটান লিভারপুল স্ট্রাইকার। পরবর্তীতে সুয়ারেজ মাঠে ফিরলেও এভরার সঙ্গে হ্যান্ডশেক না করে নতুন বিতর্কের জন্ম দেন।

৪. মোটা অংকের জরিমানা: ২০১৩ সালে এফএ কাপে লিভারপুল-ম্যান্সফিল্ড ম্যাচে কয়েকবারই গোলের সুযোগ হাতছাড়া করেন সুয়ারেজ। একটা পর্যায়ে তার একটা দারুণ শট ঠেকিয়ে দেন ম্যান্সফিল্ড গোলরক্ষক। এরপরই গোলরক্ষকের ধরা বল হাত থেকে কেড়ে নিয়ে তা জালে পাঠিয়ে দেন সুয়ারেজ। এই কাণ্ডের দায়ের ফুটবল এসোসিয়েশনকে দুই লাখ পাউন্ড আক্কেল সেলামী দিতে হয় লিভারপুলের উরুগুয়েন স্ট্রাইকারকে।

৫. প্রতিপক্ষ কোচের সামনে ডাইভ: এমনিতেই মার্সিসাইড ডার্বির উত্তেজনা চরমে থাকে। ২০১২ সালে তেমনই একটা শ্বাসরুদ্ধকার ম্যাচে গোল করেন সুয়ারেজ। এরপরই এভারটন কোচ ডেভিড ময়েসের সামনে গিয়ে অহেতুক ডাইভ উদযাপন শুরু করেন তিনি। তার ডাইভ দেখে এমন বিতর্কই উঠেছিল যে, কেউ কেউ সুয়ারেজকে অলিম্পিকে যাওয়ার পরামর্শ দেন!

৬. ওটমান বাক্কালকে দংশন: দংশনের জন্য ২০১০ সালে বিখ্যাত হয়ে যান সুয়ারেজ। ওই বছরই প্রথমবার প্রতিপক্ষ ফুটবলারকে কামড়ে দেন তিনি। তার প্রথম দংশনের শিকার পিএসভি আইন্দোফেন ফুটবলার। ওটমান বাক্কালকে কামড় দিয়ে বসেন আয়াক্স স্ট্রাইকার সুয়ারেজ। প্রথমবার কামড় দেওয়া সুয়ারেজকে সাত ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়।

৭. ইভানোভিচের হাতে কামড়: নেদারল্যান্ডস ফুটবলের ঘটনার পুনরাবৃত্তি সুয়ারেজ করলেন তিন বছর পর। চেলসি ডিফেন্ডার ব্রানিস্লাভ ইভানোভিচের হাতে দাঁত বসিয়ে দেন লিভারপুল তারকা। যা রেফারির চোখ এড়িয়ে যায়। একটু পর সুয়ারেজ গোলও করেন। ম্যাচ শেষে ইভানোভিচের কাছে সোশ্যাল মিডিয়ায় এক পোস্টে ক্ষমা চান সুয়ারেজ। যদিও শেষ রক্ষা হয়নি তাতে। ফুটবল এসোসিয়েশন ১০ ম্যাচ নিষিদ্ধ করে তাকে।

৮. বিশ্বকাপে কামড়-কাণ্ড: সুয়ারেজ কামড়কাণ্ডের হ্যাটট্রিক করেন পরের বছরই; বিশ্বকাপের মঞ্চে। ইতালিয়ান ডিফেন্ডার জর্জিও কিয়েলিনির কাঁধে কামড় বসিয়ে দেন তিনি। তার এবারের দংশন সবচেয়ে বেশি সমালোচনার ঝড় তুলেছে। ইতালির কাছে হেরে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যায় সাবেক চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়ে। আর সুয়ারেজকে সবধরনের ফুটবল থেকে চার মাস নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। এ ছাড়া উরুগুয়ের নয় ম্যাচে তাকে নিষিদ্ধ করা হয়। যথারীতি এবারো প্রতিপক্ষ ফুটবলারের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন সুয়ারেজ।

৯. ফুটবল মাঠে বক্সিং: ফুটবল মাঠে সুয়ারেজ বক্সার হিসেবেও হাজির হয়েছিলেন একবার। উরুগুয়ে স্ট্রাইকারদের বিরুদ্ধে দারুণ পারফর্ম করছিলেন চিলিয়ান ডিফেন্ডাররা। বারবার গোল না পাওয়ার হতাশায় প্রতিপক্ষ ফুটবলার গঞ্জালো জারার মুখে ঘুঁষি মেরে বসেন সুয়ারেজ। রেফারির চোখ এড়িয়ে যায়। মাঠে কোনো শাস্তিও পাননি তিনি।

১০. ম্যারাডোনার পদাঙ্ক অনুকরণ: হাত দিয়ে গোল করে গোটা বিশ্বকে হতভম্ব করে দিয়েছিলেন আর্জেন্টিনার কিংবদন্তি ডিয়েগো ম্যারাডোনা। ২০১০ বিশ্বকাপে তার পদাঙ্কই অনুকরণ করেছেন সুয়ারেজ। তিনি অবশ্য ম্যারাডোনার মতো গোল করেননি; বরং হাত দিয়ে গোল ঠেকিয়েছেন! তাতে নিশ্চিত গোল ও জয়বঞ্চিত হয় ঘানা।

উরুগুয়ের গোলমুখে যখন বল ঢুকছিল ঠিক তখনই হাত দিয়ে বল ঠেকিয়ে দেন সুয়ারেজ। স্বাভাবিকভাবেই লাল কার্ড দেখেন তিনি। রেফারি ঘানাকে পেনাল্টি দিলেও তা আবার ঠেকিয়ে দেন উরুগুয়ে গোলরক্ষক। কোয়ার্টার ফাইনাল গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। থ্রিলার ম্যাচটা শেষ পর্যন্ত জিতে যায় ল্যাটিন জায়ান্টরা।

ঘানা ফুটবলার গায়ান যখন পেনাল্টি মিস করেন তখন টাচলাইনে বুনো উল্লাস করেন সুয়ারেজ। তিনি হয়ে যান দেশের নায়ক। আর ঘানার খলনায়ক। গ্যালারিতে থাকা ঘানাইয়ান সমর্থকরা দুয়ো দিতে থাকেন সুয়ারেজকে। ম্যাচ শেষে ঘানার সমর্থকদের পাল্টা জবাবে সুয়ারেজ দিয়েছেন আরেক খোঁচা। বলেছেন, ‘এই টুর্নামেন্টের সেরা সেভটা আমি করেছি।’

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর

Stay on top of the latest sports news, including cricket and football, from around the world. Get comprehensive coverage of matches, tournaments, and leagues— along with expert analysis and commentary from our team of sports journalists. Whether you're a die-hard fan or a casual observer, you'll find everything you need to know about your favorite sports here.

Sports, cricket, and football are popular topics in the world of sports. Cricket is a bat-and-ball game played between two teams of eleven players and is particularly popular in South Asian countries. Football, also known as soccer, is a team sport played with a spherical ball between two teams of eleven players and is widely popular worldwide. Sports enthusiasts follow the latest news, matches, tournaments, and leagues in these sports and analyze and comment on the performances of players and teams.