আপনি পড়ছেন

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সবকিছু এলোমেলো করে দিয়েছে। মুখ থুবড়ে পড়েছে দেশের স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম। ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এ বছর প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) ও মাদ্রাসা বোর্ডের ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী (ইইসি) বাতিলের সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়। প্রধানমন্ত্রীর অনুমতি পেলে পরীক্ষা বাতিলের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়া হবে। আজ বুধবার এ সংক্রান্ত প্রস্তাবনার সারসংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হয়েছে।

primary ministry

এর আগে এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউসের উপস্থিতিতে শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিবের একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। তিন সচিবের ওই বৈঠকেই প্রাথমিকভাবে পরীক্ষা বাতিলের এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। পরবর্তী পদক্ষেপ হিসেবে দুই মন্ত্রণালয় থেকে এ ব্যাপারে দুটি প্রস্তাবনা তৈরি করার সিদ্ধান্ত হয়। ইতোমধ্যেই যা তৈরি করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে জমা দেওয়া হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আকরাম আল হোসেন বলেন, আমাদের নিজেদের মধ্যে আলোচনা-পর্যালোচনা এবং সিদ্ধান্তের পর এর একটি সারসংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী অনুমতি দিলে এ বছর প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী ও সমমানের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না। তার পরিবর্তে যতটুকু পড়ানো হয়েছে, ততটুকুর ওপর ক্লাস মূল্যায়ন করে সনদ দেওয়া হবে।

education ministry 2019

প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো সারসক্ষেপ প্রস্তাবনায় বর্তমান বাস্তবতা তুলে ধরা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, শিশু শিক্ষার্থীদের জন্য সংসদ টেলিভিশনের মাধ্যমে ‘ঘরে বসে শিখি’ নামক অনুষ্ঠান চলমান আছে। কিন্তু খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অনেক শিক্ষার্থীর বাসায় টেলিভিশন নেই। আবার টেলিভিশন থাকলেও ক্যাবল সংযোগ না থাকায় তারা এই ক্লাস দেখতে পারেনি। এ অবস্থায় প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা নেওয়া মুশকিল।