আপনি পড়ছেন

পবিত্র কোরআনে অল্লাহ তায়ালা বলেন, আর তোমাদের মধ্যে যারা বিবাহহীন তাদের বিয়ে সম্পাদন কর এবং তোমাদের দাস ও দাসীদের মধ্যে যারা সৎ তাদেরও। তারা অভাবগ্রস্ত হলে আল্লাহ নিজ অনুগ্রহে তাদেরকে অভাবমুক্ত করে দেবেন; আল্লাহ তো প্রাচুর্যময়, সর্বজ্ঞ। সূরা নূর, আয়াত ৩২।

islamic couple

একটি পরিশুদ্ধ সমাজের জন্য বিয়ে কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা জানতে এ হাদিসটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আনাস ইবনে মালেক রা. থেকে বর্ণিত হয়েছে, তিনি বলেন, তিন জনের একটি দল নবী (সা.) এর ইবাদাত সম্পর্কে জানতে নবীর স্ত্রীদের জিজ্ঞেস করলেন। যখন নবী (সা.) এর দিন রাতের দীর্ঘ ইবাদত সম্পর্কে জানলেন তখন তারা ভাবলেন, হায়! তিনি নবী হয়ে এত ইবাদত করেন, তার সঙ্গে আমাদের তুলনা হতে পারে না। কারণ, তাঁর আগের ও পরের সকল গোনাহ ক্ষমা করে দেয়া হয়েছে।

এমন সময় তাদের মধ্য থেকে একজন বলল, আমি সারা জীবন রাতভর সালাত আদায় করতে থাকব। অপর একজন বলল, আমি সব সময় সওম পালন করব এবং কখনো বাদ দিব না। অন্যজন বলল, আমি নারী সংসর্গ ত্যাগ করব, কখনও বিয়ে করব না।

এরপর রাসুলুল্লাহ (সা.) তাদের কাছে এলেন এবং বললেন, ‘তোমরা কি ঐ সব লোক যারা এমন এমন কথাবার্তা বলেছ? আল্লাহর কসম! আমি আল্লাহকে তোমাদের চেয়ে বেশি ভয় করি এবং তোমাদের চেয়ে তাঁর প্রতি বেশিঅনুগত; অথচ আমি সওম পালন করি, আবার তা থেকে বিরতও থাকি। সালাত আদায় করি এবং নিদ্রা যাই ও বিয়েও করি। বুখারি, মুসলিম, মুসনাদের আহমাদ।

মাওলানা আবদুর রহিম তার বিখ্যাত পারিবারিক জীবন গ্রন্থে লিখেছেন, ইসলামের বিয়ের ব্যাপারে এত গুরুত্ব দেওয়ার পরও অনেক সময় যুবক-যুবতীরা কেবল দারিদ্রের অজুহাতে বিয়ে করতে রাজি হয় না। তারা মনে করেন বিয়ে করলে আর্থিক দারিদ্রতা বেড়ে যাবে। আর এ দায়িত্ব পালন করতে না পারলে বা আরো বেশি অর্থ উপার্জনের সুযোগ না হলে জীবনমান নিচে নেমে যাবে কিংবা জীবনে বিপর্যয় নেমে আসবে।

তিনি আরো লেখেন, যুবক-যুবতীদের এ ধরনের চিন্তা-চেতনা শরিয়তের আলোকে মোটেও গ্রহণযোগ্য নয়। বাস্তবিক দৃষ্টিকোণ থেকেও এসব চিন্তা সঠিক বলে মেনে নেওয়া যায় না। কেননা, মানুষের আয়-রোজগার স্থায়ী বা অপরিবর্তনীয় কোনো বিষয় নয়। যে আল্লাহ আজ একজনকে ৫০ টাকা দিচ্ছেন, কাল সে আল্লাহই তাকে ১০০ টাকা দিতে পারেন।

দারিদ্র কিংবা অর্থাভাব যেন বিয়ের পথে বাধা না হয়ে দাড়ায় এ জন্য আল্লাহ তায়ালা স্পষ্ট ঘোষাণা করেছেন, যদি যুবক-যুবতীরা দরিদ্র হয়, তবে আল্লাহ তাদের নিজ দয়ায় স্বাবলম্বী করে দেবেন। আসলে আল্লাহর মত বড়দাতা এবং বিজ্ঞ কেউ নেই। সূরা নুর, আয়াত ৩২।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর