আপনি পড়ছেন

নানা নাটকীয়তার মধ্যেই এবার নিজেকে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক দাবি করেছেন নিপুণ আক্তার। আজ মঙ্গলবার বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন, এফডিসিতে এক সংবাদ সম্মেলনে এমন দাবি করেন তিনি। এ পদে প্রতিদ্বন্দ্বী জায়েদ খানের সঙ্গে জয় নিয়ে রীতিমতো লড়াই চলছে তার, যা গড়িয়েছে আদালত পর্যন্ত।

nipun vবিজয়ের চিহ্ন দেখাচ্ছেন নিপুণ, ফাইল ছবি

হাইকোর্টের আদেশ চেম্বার আদালতে স্থগিত হয়েছে উল্লেখ করে নিপুণ বলেন, এর ফলে আপিল বোর্ডের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আমাকে সাধারণ সম্পাদক করা বহাল রয়েছে। দায়িত্ব পালনে আইনি কোনো বাধা নেই, সমিতির কার্যক্রম স্বাভাবিকভাবে চালিয়ে যাব আমি।

পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চের শুনানিতে দুটি রায় এসেছে জানিয়ে তিনি বলেন, একটিতে চেম্বার আদালত হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করেছেন। তার মানে হলো- আপিল বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আমি বৈধ সাধারণ সম্পাদক এবং সেভাবেই শপথ নিয়েছি, চেয়ারে বসেছি। অপরটি হলো- স্থিতাবস্থা দেওয়া, যার মানে যেভাবে আছে সেভাবেই থাকবে। এ ক্ষেত্রে শপথ নিয়ে কার্যক্রম শুরু করেছিলাম বলে সেভাবেই এখন দায়িত্ব পালন অব্যাহত রাখব।

zayed khanজায়েদ খান, ফাইল ছবি

এ বিষয়ে শিল্পী সমিতির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গঠিত আপিল বোর্ডের প্রধান সোহানুর রহমান সোহান বলেন, গতকাল আদালতের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চের শুনানিতে আমিসহ বোর্ড সদস্য মোহাম্মাদ হোসেনকে ধন্যবাদ জানানো হয়েছে। আমাদের কাজের প্রশংসাও করা হয়, সমস্যার দ্রুত সমাধান হবে বলে আশা করি।

এদিকে, জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিল করে আপিল বোর্ডের দেওয়া সিদ্ধান্ত কেন অবৈধ হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করা হয়েছিল। সেটির ওপর আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি শুনানির দিন ধার্য করেছেন হাইকোর্ট। আজ বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে জায়েদ খানের পক্ষে শুনানি করেন ইউসুফ হোসেন হুমায়ূন, আহসানুল করিম ও নাহিদ সুলতানা যুথি। আর নিপুণের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ। গত ৭ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টে রিটটি দায়ের করেন জায়েদ খান। পরদিন হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করেন নিপুণ।

এ বিষয়ে শুনানির পর গত ৯ ফেব্রুয়ারি সমিতির সাধারণ সম্পাদক পদে স্থিতাবস্থা জারি করেন আপিল বিভাগের চেম্বার জজ আদালত। সেইসঙ্গে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি নিপুণের আবেদনটি আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির দিন নির্ধারণ করা হয়। সে অনুযায়ী ১৪ ফেব্রুয়ারি পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানি হয়, পরে চেম্বার আদালতের আদেশ বহাল রেখে হাইকোর্টকে রুল নিষ্পত্তির নির্দেশ দেন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ।

উল্লেখ্য, গত ২৮ জানুয়ারি চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির দ্বিবার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়, যাতে সভাপতি পদে জয়ী হয়েছেন ইলিয়াস কাঞ্চন। তার কাছে হেরেছেন সাবেক সভাপতি মিশা সওদাগর। তবে সাধারণ সম্পাদক পদে প্রথমে জায়েদকে বিজয়ী ঘোষণা করে নির্বাচনী কর্তৃপক্ষ।

পরবর্তীতে অনিয়মের অভিযোগে জায়েদের প্রার্থিতা বাতিল করে নিপুণকে জয়ী ঘোষণা করে সংশ্লিষ্ট আপিল বোর্ড। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের পর বিষয়টি গড়িয়েছে আদালত পর্যন্ত। নির্বাচনের দিনই সংবাদ মাধ্যমের কাছে নিপুণ অভিযোগ করেন যে, জায়েদ খান টাকা দিয়ে ভোট কিনছেন। সে অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেন জায়েদ খান।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর