আপনি পড়ছেন

আফগানিস্তান এমন একটি দেশ যেটি গত শতাব্দীতে ব্রিটিশ সৈন্যবাহিনীর বিরুদ্ধে ১০ বছর যুদ্ধ করেছে। এই শতাব্দীর প্রথম দুই দশকে তারা পরাজিত করেছে যুক্তরাষ্ট্র নেতৃত্বাধীন ন্যাটো বাহিনীকে। সেই আফগানরা এবার রুশ ও মার্কিন বাহিনীর তুলনায় ‘ক্ষুদ্র’ পাকিস্তান এয়ার ফোর্স (পিএএফ) এর হামলার মুখে।

map afghanistan kunar khostআফগানিস্তান

দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় খোশত ও কুনার প্রদেশে বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তুতে পিএএফ হামলা চালালে ৪৭ জন নিহত হয়। স্থানীয় সময় গত শনিবার এই বিমান হামলা চালায় পাকিস্তান। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, হতাহতের মধ্যে বেশিরভাগই নারী ও শিশু।

জেনারেল সাঈদ সামি সা'দাত রূপকভাবে পাকিস্তানকে ‘ক্ষুদ্র’ বলে অভিহিত করেছেন। অবস্থানগতভাবে তিনি তালেবানবিরোধী। আফগানিস্তানে তালেবানের বিরুদ্ধে যতগুলো ফ্রন্ট প্রতিরোধ তৈরি করেছে তার মধ্যে সা'দাতের ফ্রন্ট উল্লেখযোগ্য। তাই হামলার পর তার এমন শব্দচয়ন আফগানদের মনের কথা হিসেবেই ধরে নেওয়া যুক্তিযুক্ত।

হামলার পর জেনারেল সাঈদ সামি এক টাইট বার্তায় লেখেন- 'পাকিস্তানি বিমান বাহিনী আফগানিস্তানের খোস্ত ওয়াজিরিস্তানি অভিবাসী শিবিরে হামলা চালিয়েছে। আজ সকাল (শনিবার ) পর্যন্ত কুনার, খোস্ত, পাকতিকা এবং নিমরুজ প্রদেশের কয়েকটি স্থানে হামলা হয়েছে। হামলায় নারী-শিশুসহ অন্তত ১০০ জন হতাহত হয়েছে। এটি আফগান মাটিতে পাকিস্তানের সরাসরি হামলা। অবশ্যই এটি বন্ধ করতে হবে।'

এদিকে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হামলার হতাহতের সংখ্যা নিয়ে ভিন্ন তথ্য দিয়েছে। তাদের দাবি ৪৭ জন নয়, হামলায় নিহত হয়েছে মাত্র ছয়জন। তবে কেন এই হামলা, সেই সম্পর্কে মন্ত্রণালয় জানায়- সন্ত্রাসীরা আফগানিস্তানের মাটি ব্যবহার করে পাকিস্তানের অভ্যন্তরে হামলার পরিকল্পনা করছিল। তাদের রুখে দিতেই এই হামলা।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেছেন, 'নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গিগোষ্ঠী পাকিস্তান তালেবান (টিটিপি) পাকিস্তানের সীমান্ত নিরাপত্তা চৌকিতে আক্রমণ অব্যাহত রেখেছে। বেশ কয়েকজন পাকিস্তানি সেনা শহীদ হয়েছে।'

মুখপাত্র আরও বলেন, 'পাকিস্তান সকল ক্ষেত্রে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক জোরদারে আফগান সরকারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করে যাবে।'

হামলার জবাবে পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে কাবুল। শুধু তাই নয়, হামলার প্রতিশোধ নেওয়ারও হুমকি দিয়েছে। যদিও তারা আনুষ্ঠানিকভাবে কোন প্রতিবাদ জানায়নি, কোন পদক্ষেপও নেয়নি।

মূলত দুটি কারণে তারা এমন নিষ্ক্রিয় থাকতে পারে- প্রথমত, সমস্যাটি সমাধান করা সহজ নয়। দ্বিতীয়ত, তালেবান শাসনের স্বীকৃতির জন্য বিশ্ব সম্প্রদায়ের সামনে ইসলামাবাদ যে ওকালতি করছে তা অব্যাহত রাখতে দেশটির সঙ্গে বিবাদে যেতে চাচ্ছে না কাবুল।

লেখক: মাহবুবুল ইসলাম
আইনজীবী এবং ওয়ার্ল্ড পিস কাউন্সিলের সাবেক সেক্রেটারি

প্রিয় পাঠক, ভিন্নমতে প্রকাশিত লেখার বিষয়বস্তু, রচনারীতি ও ভাবনার দায় একান্ত লেখকের। এ বিষয়ে টোয়েন্টিফোর লাইভ নিউজপেপার কোনোভাবে দায়বদ্ধ নয়। আপনাদের ধন্যবাদ।
গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর