advertisement
আপনি দেখছেন

প্রতিটি মুমিন সারাটি বছর রমজানের প্রতীক্ষায় থাকে। বছর ঘুরে রমজান সময় মতই উপস্থিত হয়েছে বরাবরের ন্যায়। একটা একটা করে রোজা চলে যাচ্ছে। রমজান নিয়ে আমাদের আগ্রহ-আতিশয্য যথেষ্ট। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রেই রমজানের কাঙ্ক্ষিত সুফল আমরা পাচ্ছি না। আলস্য-অবহেলায়, অজ্ঞতা-অসচেতনতায় আর গাফিলতির কারণে রমজানের প্রকৃত ফায়দা ও ফজিলত থেকে বঞ্চিত থেকে যাচ্ছি অনেকেই। ফলে নিজেরাও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি, ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে গোটা জাতি। কারণ রমজানের লক্ষ্যই হলো মিথ্যা কথা ও কাজ থেকে ব্যক্তি ও জাতিকে শুদ্ধ করা। অজ্ঞতা প্রসূত আচরণ থেকে সমাজকে মুক্ত করা। রমজান আসে যায়, কিন্তু আমাদের আচরণের যে পরিবর্তন হচ্ছে সামান্যই সে ব্যাপারে সবাই সচেতন।

ramadan 3rd 2021প্রতীকী ছবি

অন্যদিকে, এই রমজান হতে পারে আমাদের যে কারো জীবনের শেষ রমজান। গুনাহ মাফ করিয়ে নেয়ার শেষ সুযোগ। দুনিয়ার চাকচিক্য ও ব্যস্ততায় মৃত্যুর অমোঘ বাস্তবতা আমাদের দৃষ্টির আড়ালে চলে যায়। চেতনা থেকে হারিয়ে যায় সৃষ্টিকর্তার সামনে জবাবদিহির সেই দিনের কথা।

মহামারী করোনা মৃত্যু সম্পর্কে আমাদের নতুনভাবে সজাগ করে তুলেছে। মহামারীর মাসে রমজান তাই আরো গভীর সচেতনতা সৃষ্টির দাবি নিয়ে উপস্থিত। অন্যদিকে, সেহরি-ইফতার-ঈদ, মার্কেটের আধিক্য ও বাড়াবাড়ি, ঘুম প্রভৃতি ‘‘সময়-চোর’’-দের সাথে যুক্ত হয়েছে রোজাদারের জন্য নতুন চ্যালেঞ্জ টেলিভিশনের সিরিয়াল, সোশ্যাল মিডিয়া প্রভৃতি। রমজানের প্রতিটি মুহূর্ত মহামূল্যবান। তাতে ভাগ বসায় এসব আয়োজন ও অভ্যাস। এসব বিষয়ে নিজেদের ও অন্যান্য মুমিন ভাই ও বোনদের সচেতন করার লক্ষ্যেই আমাদের এই আয়োজন। মহান আল্লাহ তা’য়ালা রমজানের প্রতিটি কল্যাণ আমাদের সকলকে দান করুন, আমীন।

৫. নেকী হাসিলের মওসুম রমজান। রমজান হলো পরকালীন ব্যবসা-বাণিজ্যের এক অতি লাভজনক বাজার। এ মাসে প্রতিটি ফরজ আদায়ের সওয়াব আল্লাহ পাক ৭০ গুণ বাড়িয়ে দেন। ফরজ ইবাদতগুলি সঠিকভাবে আদায়ের সাথে সাথে নফল আদায়ে জোর দেই। সবাই নবী সা.-এর অনুকরণে এ মাসে বেশি বেশি দান ও সাদাকা করি। আল্লাহ পাকের নির্দেশ হলো- তোমরা নিজেকে ও পরিবার-পরিজনকে জাহান্নামের আগুন থেকে বাঁচাও (তাহরিম ৬৬: ৬)। তোমরা নিকট আত্মীয়দের আখিরাতের কঠিন দিন সম্পর্কে সচেতন করো (শুয়ারা ২৬: ২১৪)।

রসুল সা. বলেছেন, ‘বাল্লিগু আ’ন্নি ওয়ালাও আয়াহ’, অর্থাৎ আমার পক্ষ থেকে একটি আয়াত হলেও তাবলীগ করো। এই নির্দেশের ব্যাপারে প্রতিদিন অল্প অল্প করে হলেও আমল করি। পরিবার, নিকট আত্মীয় বা বন্ধু-বান্ধব সবার কাছে ইসলামের সঠিক বুঝ পৌঁছে দিতে সাধ্যমতো উদ্যোগ গ্রহণ করি।

৬. রমজানে অনেকে যাকাত আদায় করেন। আপনি সঠিকভাবে হিসাব করে যাকাত দিচ্ছেন কি? সত্যিকার হকদারকে যথাযথ হক আদায় করে দিচ্ছেন কি? মূল্যায়ন করে দেখুন। যাকাত দান নয় দেনা, মালদারের দেনা। এর দ্বারা আল্লাহ পাক বান্দার আত্মা ও সম্পদকে পবিত্র ও পরিশুদ্ধ করেন। অসহায় মানুষের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন এবং দ্বীন ইসলামের প্রচার ও প্রসারে যাকাতের অর্থ সমন্বিতভাবে ব্যয় করা জরুরি। কোনো প্রতিষ্ঠানকে যাকাত দিলেই যাকাত আদায় হয়ে যায় বলে কেউ কেউ বিবেচনা করেন। সেসব প্রতিষ্ঠান সঠিকভাবে শরীয়তের বিধান অনুযায়ী যাকাতের অর্থ ব্যবহার করে কি না খোঁজ রাখা দরকার। প্রতিষ্ঠানগুলি যথাযথভাবে যাকাতের অর্থ ব্যবহার না করলে যাকাত আদায় হবে না।

এ ছাড়া দুস্থ ও অভাবী মানুষকে ২/৫ টাকা করে যাকাতের অর্থ না দিয়ে তাদের আর্থিক অবস্থার পরিবর্তন হয় এমনভাবে যাকাত প্রদান করি। যাকাতের জন্য নিম্নমানের শাড়ী বা লুঙ্গি বিতরণ শরীয়তসম্মত নয়। ইসলামী সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানসমূহেরও সতর্ক থাকা প্রয়োজন। প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা, শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা অথবা অফিস বা মাদ্রাসা ভবন নির্মাণ যাকাতের খাত নয়। এসব খাতে যাকাতের অর্থ যেন ব্যবহার না হয় সে ব্যাপারে সতর্ক থাকা প্রয়োজন।