advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 10 মিনিট আগে

সপ্তাহখানিক পরই ২০২০ এ পদার্পন করবে বিশ্ব। এরমধ্যেই বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান চলতি বছরের হিসাব-নিকাশ নিয়ে করছেন চুলচেরা বিশ্লেষণ। বিগত বছরগুলোর ন্যায় ২০১৯ সালেও একের পর এক নতুন স্মার্টফোন বাজারে নিয়ে এসেছে বিভিন্ন মোবাইল নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। এইসব মোবাইলকে পাশাপাশি রেখে এনডিটিভির গেজেটস ৩৬০ সেরা দশ স্মার্টফোনের তালিকা তৈরি করেছে।

smartphone best 2019

চলুন দেখে নেয়া যাক ২০১৯ সালে বাজারে আসা সেরা স্মার্টফোনগুলো:

১. স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট ১০ প্লাস:

ছবি তোলার জন্য স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট ১০ প্লাস ফোনের পেছনে রয়েছে তিনটি ক্যামেরা। ১২ মেগাপিক্সেলের একটি টেলিফটো লেন্সের সাথে রয়েছে অপটিক্যাল ইমেজ স্টেবিলাইজেশন। এছাড়া, থাকছে ১২ মেগাপিক্সেল একটি ওয়াইড অ্যাঙ্গেল আর ১৬ মেগাপিক্সেল আলট্রা ওয়াইড অ্যাঙ্গেল ক্যামেরা।

তিনটি ক্যামেরা ছাড়াও এই ফোনের পেছনে রয়েছে একটি ভিজিএ ডেপথ সেন্সর। ফোনের সামনে রয়েছে ১০ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা। স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট ১০ প্লাস ফোনে রয়েছে বিশাল ব্যাটারি, দুর্দান্ত ডিসপ্লে আর এস- পেন সাপোর্ট।

২. ওয়ান প্লাস সেভেন টি:

ওয়ান প্লাস সেভেন টি ফোনে অ্যান্ড্রয়েড ১০ অপারেটিং সিস্টেমের ওপরে রয়েছে অক্সিজেন ওএস সাপোর্ট। এই ফোনে রয়েছে ৬.৫৫ ইঞ্চি ফ্লুইড অ্যামোলেড ডিসপ্লে। ফোনের ভেতরে থাকছে স্ন্যাপড্রাগন ৮৫৫+ চিপসেট, ৮ জিবি র‌্যাম আর ১২৮ জিবি অথবা ২৫৬ জিবি ইউএফএস ৩.০ স্টোরেজ সিস্টেম।

এই ফোনের রয়েছে তিনটি ক্যামেরা। একটি ৪৮ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর। সাথে থাকছে একটি ওয়াইড অ্যাঙ্গেল ক্যামেরা আর একটি টু এক্স অপটিক্যাল জুমসহ টেলিফটো ক্যামেরা। কম আলোতে ভালো ছবি তোলার জন্য রয়েছে বিশেষ নাইট মুড। সেলফি তোলার জন্য এই ফোনের সামনে রয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেলের একটি ক্যামেরা।

ওয়ান প্লাস সেভেন টি ফোনে রয়েছে ৩,৮০০ এমএএইচ ব্যাটারি। দ্রুত চার্জ করতে থাকছে ৩০ ওয়াটের ফাস্ট চার্জ সাপোর্ট।

৩. ওয়ান প্লাস সেভেন টি প্রো:

ওয়ান প্লাস সেভেন টি প্রো ফোনে রয়েছে পপ-আপ সেলফি ক্যামেরা আর কার্ভড ডিসপ্লে। এই ফোনেও অ্যান্ড্রয়েড ১০ অপারেটিং সিস্টেমের ওপরে রয়েছে অক্সিজেন ওএস সাপোর্ট। ৬.৬৭ ইঞ্চি কোয়াড এইচডি প্লাস ফ্লুইড অ্যামোলেড ডিসপ্লের এই ফোনে আছে ৯০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট। ফোনের ভেতরে রয়েছে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৮৫৫+ চিপসেট, ৮ জিবি র‌্যাম আর ২৫৬ জিবি স্টোরেজ। এই ফোনে আছে শক্তিশালী ৪,০৮৫ এমএএইচ ব্যাটারি।

ওয়ান প্লাস সেভেন টি প্রো ফোনের পেছনে ৪৮ মেগাপিক্সেলের প্রাইমারি সেন্সরসহ রয়েছে তিনটি ক্যামেরা। আর সেলফি তোলার আছে জন্য ১৬ মেগাপিক্সেল পপ-আপ ক্যামেরা।

৪. রিয়েলমি ৩ প্রো:

৬.৩ ইঞ্চি ফুল এইচডি পর্দার রিয়েল মি ৩ প্রো ফোনটিতে রয়েছে স্ন্যাপড্রাগন ৭১০ চিপসেট, ৬ জিবি পর্যন্ত র‌্যাম আর ১২৮ জিবি পর্যন্ত স্টোরেজ।

ফোনের ডুয়াল রিয়ার ক্যামেরায় থাকছে ১৬ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর আর ৫ মেগাপিক্সেল ডেপথ সেন্সর। সেলফি তোলার জন্য থাকছে ২৫ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা। এছাড়া, ৪,০৪৫ এমএএইচ ব্যাটারির এই ফোনটি দ্রুত চার্জ করার জন্য থাকছে ফাস্ট চার্জ সাপোর্ট।

৫. রেডমি কে২০ প্রো:

৬.৩৯ ইঞ্চি অ্যামোলেড ফুল এইচডি প্লাস ডিসপ্লের এই ফেনের ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর রয়েছে ডিসপ্লের নিচেই। ফোনের ভেতরে রয়েছে স্ন্যাপড্রাগন ৮৫৫ চিপসেট, ৮ জিবি র‌্যাম আর ২৫৬ জিবি স্টোরেজ।

ছবি তোলার জন্য রেডমি কে২০ প্রো ফোনের পেছনে রয়েছে তিনটি ক্যামেরা। প্রাইমারি ক্যামেরায় রয়েছে ৪৮ মেগাপিক্সেল সেন্সর। সাথে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল ওয়াইড অ্যাঙ্গেল ক্যামেরা। সেলফি তোলার জন্য এই ফোনে রয়েছে একটি ২০ মেগাপিক্সেল পপ-আপ ক্যামেরা। এছাড়া, এই ফোনে রয়েছে ৪,০০০ এমএইচ ব্যাটারির সাথে রয়েছে ২৭ ওয়াটের ফাস্ট চার্জ সাপোর্ট।

৬. রিয়েলমি এক্স টু প্রো:

অ্যান্ড্রয়েড নাইন পাই অপারেটিং সিস্টেমে চলা এই ফোনে রয়েছে ৬.৫ ইঞ্চি ফুল এইচডি ডিসপ্লে। এই ডিসপ্লেতে ৯০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট আর ডিসি ডিমিংও থাকছে। ওয়াটার ড্রপ নচসহ ডিসপ্লের নীচে থাকছে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর। স্ন্যাপড্রাগন ৮৫৫+ চিপসেট, ১২ জিবি র‌্যাম আর ২৫৬ জিবি পর্যন্ত স্টোরেজ রয়েছে রিয়েলমি এক্স টু প্রো ফোনে।

এই ফোনের পেছনে চারটি ক্যামেরা থাকছে। প্রাইমারি ক্যামেরায় থাকছে একটি ৬৪ মেগাপিক্সেল সেন্সর। সাথে থাকছে ১৩ মেগাপিক্সেল টেলিফটো ক্যামেরা, 8 মেগাপিক্সেল আলট্রা ওয়াইড ক্যামেরা আর ২ মেগাপিক্সেল ডেপথ সেন্সর। চার হাজার এমএএইচ ব্যাটারির সাথে থাকে ৫০ ওয়াটের ফাস্ট চার্জ সাপোর্ট।

৭. রেডমি নোট ৮ প্রো:

রেডমি নোট ৮ প্রো ফোনে রয়েছে ৬.৫৩ ইঞ্চি ফুল এইচডি প্লাস ডিসপ্লে। ডিসপ্লের ওপরে রয়েছে ওয়াটার ড্রপ নচ আর গরিলা গ্লাস ৫ এর সুরক্ষা। ৬ জিবি বা ৮ জিবি র‌্যাম ভেরিয়েন্টে এই ফোন পাওয়া যাবে। সাথে থাকবে ৬৪ জিবি বা ১২৮ জিবি স্টোরেজ। ছবি তোলার জন্য এই ফোনের পেছনে চারটি ক্যামেরা আছে। ৪,৫০০ এমএএইচ ব্যাটারির সাথে থাকবে ফাস্ট চার্জ সাপোর্ট। এছাড়া এই ফোনে রয়েছে লিকুইড কুলিং প্রযুক্তি।

৮. রেডমি নোট ৭ প্রো:

৬.৩ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস ডিসপ্লের সাথে ছোট নচ আর স্ন্যাপড্রাগন ৬৭৫ চিপসেটের সাথে রেডমি নোট ৭ প্রো ফোনে আছে ৬ জিবি পর্যন্ত র‌্যাম আর ১২৮ জিবি পর্যন্ত স্টোরেজ। ছবি তোলার জন্য এতে রয়েছে ডুয়াল ক্যামেরা সেট আপ। সব ক্যামেরাতেই রয়েছে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সাপোর্ট। ফোনের ভেতরে আছে একটি ৪,০০০ এমএএইচ ব্যাটারি আর ফাস্ট চার্জ সাপোর্ট।

৯. ভিভো ইউ ২০:

ভিভো ইউ ২০ ফোনে রয়েছে ৬.৫৩ ইঞ্চি এইচডি প্লাস ডিসপ্লে। ডিসপ্লের ওপরে রয়েছে ওয়াটার ড্রপ স্টাইল নচ। এই ফোনের পেছনে তিনটি ক্যামেরা রয়েছে। ভিভোর এই ফোনটিতে আছে ৫,০০০ এমএএইচ এর বড় ব্যাটারি আর ১৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জ সাপোর্ট। ভিভো ইউ ২০ ফেনের ওজন মাত্র ১৯৩ গ্রাম।

১০. স্যামসাং গ্যালাক্সি এম ৪০:

স্যামসাং গ্যালাক্সি এম ৪০ ফোনে অ্যান্ড্রয়েড পাই অপারেটিং সিস্টেমের উপরে চলবে প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব ওয়ান ইউআই। এই ফোনে থাকছে ৬.৩ ইঞ্চি ফুল এইচডি প্লাস পাঞ্চ হোল ইনফিনিটি O ডিসপ্লে। স্ন্যাপড্রাগন ৬৭৫ চিপসেটের সাথে ৬ জিবি র‌্যাম আর ১২৮ জিবি স্টোরেজ। ছবি তোলার জন্য স্যামসাং গ্যালাক্সি এম ৪০ ফোনের পেছনে রয়েছে তিনটি ক্যামেরা। সেলফি তোলার জন্য ১৬ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা ব্যবহার করেছে স্যামসাং। এছাড়া, ৩,৫০০ এমএএইচ ব্যাটারির সাথে থাকছে ফাস্ট চার্জ সাপোর্ট। ইউএনবি।

sheikh mujib 2020