advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 32 মিনিট আগে

আশঙ্কাই সত্যি হলো৷ ভারতের অ্যান্টি স্যাটেলাইট মিসাইল অপারেশন নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা সংস্থাটি ভারতের চালানো ওই পরীক্ষাকে ‘খুব ভয়াবহ ব্যাপার’ বলে মন্তব্য করেছে। নাসার বক্তব্য হলো- পরীক্ষায় ভারতের যে লো অরবিট স্যাটেলাইটটি ধ্বংস হলো, সেই বিপুল পরিমাণ ধ্বংসাবশেষ তো মহাকাশেই থাকছে।

indias settelite test

ফলে অরবিটাল ডেবরিজ বা অন্তরীক্ষ বর্জ্য আরও বেড়ে গেল৷ যা আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনের বিজ্ঞানীদের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক৷ তীব্র গতিতে ঘোরাঘুরি করা ওই বর্জ্য যেকোনো মুহূর্ত আঘাত হানতে পারে আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনে (আইএসএস)৷ প্রাণহানির আশঙ্কাও রয়েছে বিজ্ঞানীদের৷

প্রসঙ্গত, মহাকাশে বর্জ্য নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরেই উদ্বিগ্ন মহাকাশ গবেষকরা৷ কারণ ওই বর্জ্যগুলি মহাকাশে দ্রুত গতিতে চলাচল করে৷

তারই অংশ হিসেবে ভারতের অ্যান্টি স্যাটেলাইট মিসাইল পরীক্ষার ৫ দিন পর সোমবার নাসার বিজ্ঞানী জিম ব্রাইডেনস্টাইন কর্মীদের উদ্দেশে এক বিবৃতিতে বলেছেন, ভারতের ধ্বংস হওয়া লো অরবিট স্যাটেলাইটটি ধ্বংস হয়ে ৪০০টি ধ্বংসাবশেষ সৃষ্টি করেছে৷ ধ্বংসাবশেষগুলি আকারে বেশ বড় ও বিপজ্জনক৷

ব্রাইডেনস্টাইন বলছেন, 'অবজেক্ট বা ধ্বংসাবশেষগুলি বেশ বড় আকারের৷ সহজেই ট্র্যাক করা যাচ্ছে৷ এখনও পর্যন্ত যতগুলি অবজেক্ট ট্র্যাক করা গেছে, তা আকারে গড়ে ৬ ইঞ্চির বেশি বড়৷ ৬০টি ধ্বংসাবশেষের গতিবিধি চিহ্নিত করতে পেরেছে নাসা৷'

ব্রাইডস্টাইন উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, 'এটা অত্যন্ত ভয়াবহ ও বিপজ্জনক৷ আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনের কাছাকাছিই লো অরবিট স্যাটেলাইটটি ধ্বংস করেছে ভারত৷ স্পেস স্টেশনের পক্ষে যা মারাত্মক আশঙ্কার৷ এটা একেবারেই গ্রহণযোগ্য নয়৷ ভারতের এই কর্মকাণ্ড আমাদের ওপর কী প্রভাব ফেলবে, তা মানুষকে স্পষ্ট করে বুঝিয়ে দেওয়া উচিত নাসার৷ হিউম্যান স্পেস ফ্লাইটের ভবিষ্যতের পক্ষেও এই ধরনের কাজ অত্যন্ত নিন্দাজনক ও বিপজ্জনক৷'

sheikh mujib 2020