advertisement
আপনি দেখছেন

করোনা ভাইরাসের কারণে স্থবির হয়ে গেছ পৃথিবী। বাংলাদেশেও এই পরিস্থিতির বাইরে নয়। এমন সময়ে অনেকেই বাসায় বসে অফিসের কাজ করছেন। কিন্তু আপনি কি জানেন বাসায় কাজ করতে গিয়ে হ্যাকারদের কবলে পড়তে পারেন?

stay safe from hacker in the time of working from home

অফিসে কাজ করার সময় আপনি একটি সুরক্ষিত নেটওয়ার্কের ভেতরে থাকেন। কিন্তু বাসায় কাজ করার সময় সেই সুবিধা পাওয়া মুশকিল। অফিসের নেটওয়ার্কে আনুষ্ঠানিক অ্যান্টিভাইরাস ইন্সটল করা থাকে, ফলে আপনি কোন লিংকে কখন ক্লিক করছেন, আপনার কম্পিউটারের জন্য ক্ষতিকর কোনো কিছুতে ক্লিক করছেন কি না, তা অত্যন্ত সতকর্তার সাথে পর্যবেক্ষণ করা হয়। কিন্তু বাসায় কাজ করার সময় বেশির ভাগ লোকের এই ধরনের সুবিধা পাওয়া কঠিন।

সাইবার সিকিউরিটি বিশেষজ্ঞদের মতে বাসায় কাজ করার সময় আমরা অনেক বেশি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় থাকি। ফলে কোনো হ্যাকার গোষ্ঠি চাইলে প্রায় অনায়াসেই আমাদের কম্পিউটারের নানা রকম তথ্য হাতিয়ে নিতে পারে। এমন পরিস্থিতি থেকে আমাদের রক্ষা করতে পারে একটু সতর্কতা।

আপনার সফটওয়্যার আপডেট করুন

কোয়ারেন্টিনে থাকার দিনগুলোতে বাসায় নিরাপদে কাজ করতে চাইলে আপনার ব্যবহৃত সফটওয়্যারগুলো আপডেট করে নিন। বিশেষজ্ঞরা বলেন, বেশির ভাগ অফিস তাদের কম্পিউটারগুলো স্বয়ংক্রিয় আপডেটভুক্ত রাখেন। ফলে নিরাপত্তার বিষয়টি সব সময় সুরক্ষিত থাকে। এই কাজটি আপনি আপনার ব্যক্তিগত ল্যাপটপ বা মোবাইল ডিভাইসেও করুন।

প্রতিবার যখন সফটওয়্যার আপডেট হয়, তখন এর নিরাপত্তা ঝুঁকিগুলো ঠিক করা হয়। ফলে আপনার সফটওয়্যারের বর্তমান সংস্করণে কোনো নিরাপত্তাজনিত ঝুঁকি থাকলে তা পরবর্তী আপডেটে ঠিক হয়ে যাবে। সফটওয়্যার আপডেট করা হলো দরজায় নতুন তালা লাগানোর মতো, এখন হ্যাকারদের জন্য নতুন চ্যালেঞ্জ হলো এই তালার চাবি বানানো। তারা সেটা করতে করতেই দেখা যায়, নতুন আপডেট চলে আসে।

দুই স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ব্যবহার করুন

হ্যাকাররা যদি আপনার ডিভাইসে প্রবেশ করেই ফেলে, তাহলে তারা প্রথম যে কাজটি করার চেষ্টা করে তা হলো- আপনার বিভিন্ন ইউজারনেম ও পাসওয়ার্ড চুরি করা। সুতরাং এই দুর্বলতা কাটাতে দুই স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ব্যবহার করুন।

দুই স্তরের নিরাপত্তা বৈশিষ্ট কী তা ভালভাবে বুঝতে- Two factor authintication লিখে গুগলে সার্চ করুন। খুব সহজেই অনেক রিসোর্স পেয়ে যাবেন।

দুই স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা চালু করলে ইউজারনেম ও পাসওয়ার্ড দেওয়ার পরও কোনো লগইন সম্পন্ন হয় না। বরং দ্বিতীয় ধাপে একটি একবার ব্যবহার উপযোগী কোড এন্টার করতে হয়। আর এই কোডটি আপনার ফোন, ই-মেইল বা কোনো হার্ডওয়্যার ডিভাইসের মাধ্যমে জেনারেট হয়। এই ব্যবস্থা চালু করলে হ্যাকাররা আপনার ইউজারনেম বা পাসওয়ার্ড চুরি করেও কোনো ফায়দা লুটতে পারবে না।

সন্দেহজনক লিংকে ক্লিক করা বাদ দিন

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ পৃথিবীজুড়ে ছড়িয়ে পড়ার পর অন্য একটা বিপদও হাজির হয়েছে। এই মারণ ভাইরাস নিয়ে মিথ্যা তথ্যে ভরে গেছে ইন্টারনেট জগত। সুতরাং অচেনা বা সন্দেহজনক কোনো লিংকে ক্লিক করা থেকে বিরত থাকুন।

যেমন- বিবিসির খবরের লিংক সামনে এলে সেটা আপনি মোটামুটি নিশ্চিন্তে ক্লিক করতে পারেন। কিন্তু একেবারে অচেনা-অজানা কোনো ওয়েবসাইট যদি খুবই রঙমাখানো এক শিরোনাম নিয়ে আপনার সামনে হাজির হয়, ক্লিক করার আগে দশবার ভাবুন। এই ক্লিক হয়তো আপনার সব তথ্য চুরি করে নিবে না, কিন্তু একেবারে মিথ্যা এক তথ্য দিয়ে আপনার মেজাজটাই বিগড়ে দিতে পারে।