advertisement
আপনি দেখছেন

বিশ্বখ্যাত কোমল পানীয় ব্রান্ড কোকা কোলা আগামী জুলাই মাস থেকে অন্তত ৩০ দিন ফেসবুকে কোনো বিজ্ঞাপন দিবে না। সারা বিশ্বে চলমান বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলনে ফেসবুকের বিতর্কিত অবস্থানের কারণে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোকা কোলা।

coca cola pauses facebook ad

কিছুদিন আগে আমেরিকায় জর্জ ফ্লয়েড নামের একজন কৃষ্ণাঙ্গ পুলিশি নির্যাতনে মারা যান। এরপরই আমেরিকাজুড়ে বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলন জোরালো হয়। আন্দোলনের এক পর্যায়ে বিভিন্ন শহরে দোকানপাট লুট করে বিক্ষোভ করেন আন্দোলনকারিরা।

পরিস্থিতি বেসামাল থেকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ফেসবুকে লিখেন যে লুটপাট চললে গুলিও চলবে। তার এই ধরনের আক্রমণাত্মক মন্তব্য ফেসবুকের মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কিভাবে প্রকাশিত হয়, তা নিয়ে শুরু হয় ব্যাপক সমালোচনা।

এরপরও ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক জাকারবার্গ কোনো কার্যকরী পদক্ষেপ নেননি। তিনি উল্টো বলেছেন যে, ডোনাল্ড ট্রাম্প ফেসবুকে যা লিখেছেন তা ফেসবুকের নীতিমালার বহির্ভূত নয়, সুতরাং তা সরানোর কোনো পরিকল্পনা ফেসবুকের নেই।

তার এই কথার পর ফেসবুকের বেশ কয়েকজনকর্মী অসন্তোষ প্রকাশ করে কাজ করা বন্ধ রাখেন। শুধু তাই না, একাধিক সফটওয়্যার প্রকৌশলী চাকরিও ছেড়ে দেন। তারপরও জাকারবার্গ কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি। তার এই ভূমিকা ক্ষেপিয়ে তুলে বিজ্ঞাপনদাতাদের।

এরপরই #StopHateforProfit আন্দোলনের অংশ হিসেবে ফেসবুকে বিজ্ঞাপন না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় কোকা কোলা। অবশ্য এই সিদ্ধান্ত তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকর হচ্ছে না। বরং আগামী জুলাই মাসের এক তারিখ থেকে পরবর্তী অন্তত এক মাস বিজ্ঞাপন দিবে না কোকা কোলা।

এই রকম পদক্ষেপ নিয়ে আরো বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। তার মধ্যে আছে ইউনিলিভারও। তারাও তাদের বেশ কয়েকটি পণ্যের বিজ্ঞাপন আপাতত বন্ধ রেখেছে। কোকা কোলা অবশ্য শুধু ফেসবুক বা ইন্সটাগ্রামে নয়, তারা টুইটার, ইউটিউবের মতো অন্যান্য সামাজিক মাধ্যমেও বিজ্ঞাপন বন্ধ রাখার ডাক দিয়েছে।

কোকা কোলার প্রধান নির্বাহী জেম কুইন্সি এক বিবৃতিতে বলেছেন, “পহেলা জুলাই থেকে অন্তত ৩০ পর্যন্ত আমরা কোনো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিবো না। এই সময়ে আমরা আমাদের বিজ্ঞাপনি নীতিমালা পর্যালোনা করবো এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কাছে কী আশা করি, তা বিবেচনা করবো।”

তিনি আরো বলেন, “ঘৃণা, সহিংসতা এবং অনুপযুক্ত উপাদান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য কিভাবে কাজ করতে হবে, আমরা তা বিশ্লেষণ করবো। এরপর আমরা তাদের জানিয়ে দিবো যে স্বচ্ছতার জন্য আমরা কিভাবে কাজ করতে চাই।”

কোকা কোলা ও ইউনিলিভারের সাথে এর আগে টেলিযোগাযোগ সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান ভেরিজনও অংশগ্রহণ করেছে। এ দিকে, এর মধ্যেই নিজেদের নীতিমালায় কিছু পরিবর্তন আনার ঘোষণা দিয়েছে ফেসবুক। যদিও এর সাথে বিজ্ঞাপনদাতাদের ক্ষোভের কোনো সম্পর্ক দেখা যাচ্ছে না।

sheikh mujib 2020