advertisement
আপনি দেখছেন

২০২৩ চন্দ্র মিশনে ব্যবহারের জন্য প্রস্তুত করা হাইব্রিড রকেট ইঞ্জিনের প্রথম পরীক্ষা রোববার সফলভাবে সম্পন্ন করেছে তুরস্ক। মিশনের অগ্রযাত্রায় এ পরীক্ষাকে বড় মাইলফলক হিসেবে দেখছেন দেশটির শিল্প ও প্রযুক্তিমন্ত্রী।

turkey moon mission hybrid rocketতুরস্কের চন্দ্র মিশনের রকেট ইঞ্জিনের সফল পরীক্ষা

ফায়ারিং টেস্টটি করা হয় রাষ্ট্রীয় সহায়তাপুষ্ট গবেষণা প্রতিষ্ঠান ডেলটা ভি’র ইস্তাম্বুলের সাইল জেলার ফ্যাসিলিটিতে। ফেব্রুয়ারিতে ঘোষিত জাতীয় মহাকাশ প্রোগ্রামে এ প্রতিষ্ঠানের অগ্রণী ভূমিকা রয়েছে।

শিল্প ও প্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তফা ভারাঙ্ক জানান, একইসঙ্গে হাইব্রিড সাউন্ডিং রকেটের থ্রাস্ট সিস্টেমের ভার্টিক্যাল ফায়ারিং পরীক্ষাও করা হয়।

প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান ঘোষিত ১০ বছরের রোডম্যাপের অংশ হিসেবে তুরস্ক ২০২৩ সালে চাঁদের সঙ্গে প্রথম যোগাযোগের লক্ষ্য হাতে নিয়েছে। তাৎপর্যপূর্ণভাবে, ওই বছর তুরস্ক প্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠার শতবার্ষিকী উদযাপিত হবে। বছরটি নিয়ে বড়সড় পরিকল্পনা রয়েছে এরদোয়ানের।

চন্দ্র মিশনের অংশ হিসেবে কক্ষপথের উদ্দেশে প্রথম উৎক্ষেপণটি আন্তর্জাতিক সহযোগিতায় সম্পন্ন হবে। এরপর ডেল্টা ভি’র তৈরি হাইব্রিড ইঞ্জিন তুরস্কের মহাকাশযানকে চন্দ্রপৃষ্ঠে নিয়ে যাবে।

turkey moon mission hybrid rocket innerতুরস্কের চন্দ্র মিশনের রকেট ইঞ্জিনের সফল পরীক্ষা

রোডম্যাপ অনুযায়ী, ২০২৮ সালে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঠিক একইভাবে মহাকাশে নিজস্ব রকেট উৎক্ষেপণ করবে তুরস্ক।

২০২৩ সালে তারা চন্দ্রমিশনের প্রথম স্তর সুসম্পন্ন করতে পারবেন, এমন আশা ব্যক্ত করে ভারাঙ্ক বলেন, ‘হার্ড ল্যান্ডিং’-এর জন্য মহাকাশে একটি মানবহীন যান পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে তাদের।

মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের মহাকাশযান চাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করবে। এ লক্ষ্যে ইঞ্জিনের প্রথম ফায়ারিং সম্পন্ন করতে পেরে আমরা গর্বিত।’

রকেট ইঞ্জিনের একটি স্যাম্পল মে মাসে উত্তরের সিনোপ প্রদেশ থেকে উৎক্ষেপণ করা হবে বলে জানান ভারাঙ্ক।

ডেল্টা ভি’র জেনারেল ম্যানেজার আরিফ কারাবেওগলু বলেন, সব ঠিক থাকলে ডেল্টা ভি মে মাসে আরও উচ্চতায় উৎক্ষেপণ সম্পন্ন করবে।