advertisement
আপনি পড়ছেন

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করেন না- আজকাল এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। এর মধ্যে ফেসবুকের ব্যবহারকারীই সিংহভাগ। এসব ব্যবহারকারীদের অনেকেই নানা বিড়ম্বনায় পড়েন। বিশেষ করে আইডি হ্যাক হওয়ার ঘটনা শোনা যায় প্রায়শই। এতে করে পুলিশের দ্বারস্থ হওয়া, এমনকি মামলার উদাহরণও আছে অনেক।

facebook code

এমন বিড়ম্বনা রোধে পুলিশের পক্ষ থেকে কিছু নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আজ শুক্রবার (২৮ মে) বাংলাদেশ পুলিশের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা সম্বলিত একটি পোস্টার প্রকাশ করা হয়। ‘ফেসবুক অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা বিধানে করণীয়’ শীর্ষক এই নির্দেশনা প্রকাশ করে সংস্থাটির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন শাখা।

নির্দেশনায় বলা হয়, ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খোলার সময় যে মোবাইল নম্বর এবং ইমেইল দেওয়া হয়েছে, সেগুলোকে সচল রাখতে হবে। তা সম্ভব না হলে ফেসবুকের সেটিংসে গিয়ে নতুন নম্বর এবং ইমেইল যোগ করে দিতে হবে। তাহলে আইডি হ্যাক হওয়া কিংবা অন্যান্য সমস্যায় ব্যবহারকারীর সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

অ্যাকাউন্টে two factor authentication অপশন চালু রাখতে হবে। security and login--এ গিয়ে use two factor authentication-এর মধ্যে মোবাইল নম্বর ও মেইল দিতে হবে।

police logo 2021

শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করতে হবে। জন্ম তারিখ, নিজের নাম কিংবা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামের সাথে মিল রেখে পাসওয়ার্ড দেওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। পাসওয়ার্ড হতে হবে অন্তত ১২ ক্যারেক্টারের।

ফেসবুকে trusted contact নামে একটি অপশন রয়েছে। সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের ৪-৫ জনকে সেখানে যোগ করে রাখতে হবে। যেন আইডি হ্যাক হয়ে গেলেও তা উদ্ধার করা সম্ভব হয়। কোনো নিকনেম বা সংক্ষিপ্ত নাম যোগ না করে জাতীয় পরিচয় পত্রে থাকা নামটি প্রোফাইলে দিতে হবে।

ব্যক্তিগত তথ্য যত কম দেওয়া যায়, ততই ভালো- যোগ করা হয় নির্দেশনায়।