advertisement
আপনি দেখছেন

করোনাকালে গত এক বছরে দেশে ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়েছে প্রায় এক কোটি। তার চেয়েও বেড়েছে সামাজিক মাধ্যমটির বার্তা আদান-প্রদানের মেসেঞ্জার ব্যবহারকারী।

facebook addiction newফেসবুক ব্যবহার, ফাইল ছবি

বিভিন্ন দেশে সামাজিকমাধ্যম ব্যবহারের প্রতি মাসের হালনাগাদ তথ্য প্রকাশ করে থাকে পোল্যান্ডের নেপোলিয়নক্যাট। তাদের সর্বশেষ পরিসংখ্যানে বাংলাদেশের সামাজিকমাধ্যমের ব্যবহারকারী বাড়ার এসব তথ্য উঠে এসেছে।

নেপোলিয়নক্যাট বলছে, চলতি বছরের মে পর্যন্ত ফেসবুক গ্রাহকের সংখ্যা ৪ কোটি ৮২ লাখ ৩০ হাজারে দাঁড়িয়েছে। যা দেশের মোট জনসংখ্যার ২৮ শতাংশ। এর আগে ২০২০ সালের এপ্রিলে এই সংখ্যাটি ছিল ৩ কোটি ৮৪ লাখ ৭৫ হাজার, যা জনসংখ্যার ২২ দশমিক ৩ শতাংশ।

facebook codeফেসবুকের লোগো

সবশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ফেসবুকের ব্যবহারকারীর মধ্যে ৩০ দশমিক ৯ শতাংশ নারী এবং পুরুষ ৬৯ দশমিক ১ শতাংশ। আর ১৮-২৪ বয়সী ব্যবহারকারী সংখ্যাই ২ কোটি ১২ লাখ। এ ছাড়া গত এক বছরে বাড়া ৯৭ লাখ ৫৫ হাজার গ্রাহকের মধ্যে নারীর সংখ্যাই বেশি বলে জানানো হয়।

ফেসবুকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান মেসেঞ্জার ব্যবহারকারীর সংখ্যা এক বছরে সাড়ে ৪ গুণ বেড়ে ৪ কোটি ২১ লাখ ৫০ হাজার হয়েছে। এই সংখ্যা মোট জনসংখ্যার ২৪ দশমিক ৫ শতাংশ।

facebook messenger 1ফেসবুকের ম্যাসেজিং অ্যাপ মেসেঞ্জারের লোগো

মেসেঞ্জার গ্রাহকদের মধ্যে পুরুষ ৬৯ দশমিক ৩ শতাংশ ও নারী ৩০ দশমিক ৭ শতাংশ। কেবল ফেসবুক-মেসেঞ্জার নয়, ইনস্টাগ্রাম ও লিংকডইনের ব্যবহারকারীর সংখ্যাও বেড়েছে বাংলাদেশে, বলছে নেপোলিয়নক্যাট।

এর মধ্যে ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারকারী বর্তমানে ৪০ লাখ ৭১ হাজার, গেলো বছর একই সময়ে ছিল ২৩ লাখ ৬১ হাজার ৩০০। পেশাজীবীদের লিংকডইন ব্যবহারকারী এখন ৪১ লাখ ১৭ হাজার, গত বছর এপ্রিলে ছিল ৩৩ লাখ ৪৩ হাজার।

covid 19 virus imageকরোনাভাইরাসের প্রতীকী ছবি

তথ্য-প্রযুক্তি ও নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ডিজিটাল দেশে প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ায় স্বাভাবিকভাবেই বেড়েছে সামাজিকমাধ্যম ব্যবহারকারীর সংখ্যা। তবে করোনাকাল এই সংখ্যাটা হু হু করে বাড়িয়ে দিয়েছে।