advertisement
আপনি পড়ছেন

মোবাইল ব্যবহারকারীদের কাছে অতি পরিচিত একটি শ্বদ কলড্রপ। বিষয়টি নিয়ে গতকাল জাতীয় সংসদে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। এদিকে হিসেবে দেখা গেছে, দেশের মোবাইল অপারেটরগুলোর মধ্যে কলড্রপে শীর্ষে আছে গ্রাহক সংখ্যায় শীর্ষে থাকা গ্রামীণফোন। আর গ্রামীণের পরই আছে রবি।

call drop

বিটিআরসির গত এক বছরের পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, এক বছরে ১০৩ কোটি ৪৩ লাখ বার কলড্রপ হয়েছে গ্রামীণফোনের আর দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে রবি। যাদের কলড্রপ হয়েছে ৭৬ কোটি ১৮ লাখ বার। সংযোগ সক্রিয় বিবেচনায় গ্রামীণফোন ব্যবহারকারী বর্তমানে সাত কোটি সাত লাখ আর রবি ব্যবহারকারী চার কোটি ৬১ লাখ। অন্যদিকে সরকারি মোবাইল অপারেটর টেলিটকে কলড্রপ হয়েছে ৬ কোটি।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, 'গ্রাহক সংখ্যার তুলনা করলে জিপি-রবির কলড্রপে খুব একটা পার্থক্য নেই বললেই চলে।'

২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর হতে ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশের সবগুলো অপারেটরের কলড্রপের পরিসংখ্যান আজ সোমবার জানায় বিটিআরসি। বিটিআরসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, গ্রামীণ ও রবি ছাড়াও বাংলালিংকে কলড্রপ হয়েছে ৩৬ কোটি ৫৪ লাখ আর টেলিটকে কলড্রপ হয়েছে আনুমানিক ৬ কোটি। গ্রামীণফোনের কল ড্রপের নিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রীর ক্ষোভ প্রকাশের পরের দিনই প্রতিবেদনটি প্রকাশ করলো বিটিআরসি।

বলা হচ্ছে, বর্তমানে দেশে বাংলালিংকের সংযোগ তিন কোটি ৩৪ লাখ এবং সরকারি মোবাইল অপারেটর টেলিটকের রয়েছে ৩৮ লাখ ৭৩ হাজার সংযোগ।

গতকাল রোববার সংসদে তোফায়েল আহমদ বলেন, ‌'ইদানিং আমরা যারা গ্রামীণফোন ব্যবহার করি, তাদের প্রত্যেক কলেই কলড্রপ হয়। কখনো কখনো একটি কলে ৩, ৪, ৫ বার কলড্রপ হয়।' বক্তব্যের সময় তিনি ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তফা জব্বারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।