advertisement
আপনি পড়ছেন

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) নতুন প্রবিধানমালার কারণে বিপাকে পড়তে যাচ্ছে দেশের শীর্ষ মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোন। গত ১৯ নভেম্বর প্রকাশিত বিটিআরসির এক প্রবিধানমালায় বলা হয়, কোনো মোবাইল অপারেটরের গ্রাহক সংখ্যা যদি রাজস্ব অথবা তরঙ্গের দিক দিয়ে ৪০ শতাংশের বেশি বাজার হিস্যা থাকে তবে সেই কোম্পানিকে তাৎপর্যপূর্ণ বাজার ক্ষমতাধারী বা সিগনিফিকেন্ট মার্কেট পাওয়ার (এসএমপি) হিসেবে ঘোষণা করা যাবে। এবং এই সকল অপারেটরের ক্ষেত্রে করণীয় ও বর্জনীয় নির্ধারণ করে দিতে পারবে বিটিআরসি।

grameenphone logo

মনে করা হচ্ছে, এই নীতিতে বিপাকে পড়বে দেশের শীর্ষ মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোন। গ্রাহক সংখ্যায় গ্রামীণফোনের বাজার হিস্যা এখন ৪৬ শতাংশ। ফলে এই মোবাইলফোন অপারেটরটিতে নানা বিধি-নিষেধ আরোপ করার ক্ষমতা পেল বিটিআরসি।

অবশ্য কী কী বিধি-নিষেধ আরোপ করা যাবে তা উল্লেখ করা হয়নি বিটিআরসির নতুন প্রবিধানমালায়। বলা হয়েছে, এটা কমিশনের ওপর নির্ভর করছে। তবে একক বাজার হিস্যা, জোট করে বাজার নিয়ন্ত্রণ, তাৎপর্যপূর্ণ বাজার ক্ষমতা, ষড়যন্ত্রমূলক যোগসাজশ ইত্যাদি নিয়ন্ত্রণের কথা উল্লেখ করা হয়েছে নীতিমালায়।

‘তাৎপর্যপূর্ণ বাজার ক্ষমতা প্রবিধানমালা-২০১৮’ শীর্ষক নতুন বিধিতে তাৎপর্যপূর্ণ বাজার ক্ষমতা বলতে এমন একক বা যৌথ ক্ষমতাকে বোঝানো হয়েছে, যার মাধ্যমে প্রতিযোগীর আচরণ আমলে না নিয়ে এমন কাজ করা যায়, যা প্রতিযোগীর ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে।