advertisement
আপনি পড়ছেন

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) বকেয়া রাজস্ব দাবিকে অযৌক্তিক ও ত্রুটিপূর্ণ উল্লেখ করে সংস্থাতির বিরুদ্ধে পৃথক পৃথক দুটি মামলা করেছে মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোন (জিপি) ও রবি। গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে অপারেটর দুটি।

gp and robi logo

গ্রামীণফোন বিবৃতিতে জানায়, অডিটের ভিত্তিতে বিটিআরসি যে অযৌক্তিক অর্থ দাবি করছে তার প্রক্রিয়া, কার্যপ্রণালী ও ফলাফলের বিপক্ষে আমরা বারবার আপত্তি পেশ করেছি। ত্রুটির্পূণ অডিটকে ঘিরে অচলাবস্থার নিরসনে আমরা বারবার সালিশি প্রক্রিয়াসহ স্বচ্ছ গঠনমূলক আলোচনার আহবান জানিয়েছি। দুঃখজনকভাবে আমাদের সব প্রচেষ্টা বিটিআরসি অগ্রাহ্য করেছে।

এই অযোক্তিক অডিট দাবি আদায়ে বিটিআরসি অন্যায্যভাবে বল প্রয়োগ করছে উল্লেখ করে গ্রামীণফোন জানায়, এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৬ আগস্ট গ্রামীণফোন একটি দেওয়ানি মামলা দায়ের করতে বাধ্য হয়েছে। বিষয়টি এখন আদালতে বিবেচনাধীন।

অপরদিকে আরেক বিবৃতিতে মোবাইল অপারেটর রবি জানায়, বিটিআরসির নিরীক্ষা প্রতিবেদনে উত্থাপিত প্রশ্নবিদ্ধ আপত্তিগুলো আলাপ-আলোচনা ও বিকল্প সালিশ নিষ্পত্তির মাধ্যমে সমাধানে আমরা সর্বোচ্চ আন্তরিকতার সঙ্গে চেষ্টা করেছি। কিন্তু দুঃখজনকভাবে বিটিআরসি আমাদের সে প্রস্তাবে সাড়া না দিয়ে প্রশ্নবিদ্ধ নিরীক্ষা প্রক্রিয়ার মাধ্যমে দাবিকৃত অর্থ আদায়ে আইন বহির্ভূত পদক্ষেপ নিয়েছে।

সমস্যা সমাধানে আদালতের দ্বারস্থ হওয়া ছাড়া রবির কোনো বিকল্প ছিল না উল্লেখ করে রবি জানায়, বিষয়টি বর্তমানে আদালতে বিচারাধীন এবং এ বিষয়ে এ মুহূর্তে আর কোনো মন্তব্য করা সমীচিন নয়।

প্রসঙ্গত, গ্রামীণফোনের কাছে ১২ হাজার ৫৭৯ কোটি ৯৫ লাখ ও রবির কাছে ৮৬৭ কোটি ২৩ লাখ টাকা রাজস্ব পাওনা রয়েছে বলে দীর্ঘদিন ধরেই দাবি জানিয়ে আসছে বিটিআরসি। এ পাওনা পরিশোধ না করায় গত ৪ জুলাই গ্রামীণফোন ও রবির ব্যান্ডউইথ কমিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেয় সংস্থাটি। এরপর ধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদের মধ্যস্থতায় ১৭ জুলাই আবার দুই অপারেটরের ব্যান্ডউইথ ফিরিয়ে দেওয়া হয়।