advertisement
আপনি দেখছেন

সারাদেশে ইন্টারনেট সেবার দাম নির্দিষ্ট করে দেয়ার পর এবার বেঁধে দেয়া হয়েছে আইআইজি (ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে) ও এনটিটিএন (ভূগর্ভস্থ ক্যাবল সেবা) সেবার মূল্য। এর ফলে ইন্টারনেট সেবার মূল্য ‘এক দেশ এক রেট’ বাস্তবায়ন অনেকটাই সহজতর হবে। আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে এটি কার্যকর হতে পারে।

internet 1সারা দেশে আইআইজি ও এনটিটিএনের সেবার মূল্য বেঁধে দেয়া হয়েছে

বিটিআরসি শনিবার (৭ আগস্ট) আইএসপিএবি ও আইআইজি ফোরামের সঙ্গে বৈঠক করে সরকারের এ সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেয়। ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ গত ৪ আগস্ট এই সেবার মূল্য বেঁধে দিয়েছিল। 

সরকার গত ৬ জুন প্রথমবারের মতো তিনটি ক্যাটাগরিতে (৫, ১০ ও ২০ এমবিপিএস) ইন্টারনেটের দাম বেঁধে দেয়। তখনই ঘোষণা দেয়া হয়েছিল, শিগগিরই আইআইজি ও এনটিটিএন সেবার দাম বেঁধে দেওয়া হবে। তারই ধারাবাহিকতায় এই সিদ্ধান্ত আসে।

internet priceইন্টারনেট থাকলে দুনিয়া এখন হাতের মুঠোয়

আইআইজি ও এনটিটিএন সেবার দাম বেঁধে দেবার ফলে ইন্টারনেট সেবা ব্যবহারকারীরা ভালো মানের সেবা পাবেন। দাম একই হওয়ার কারণে ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো ভালো মানের সেবা দিয়ে গ্রাহক ধরে রাখতে চাইবে। অপরদিকে ঢাকার বাইরের ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো বিশেষ সুবিধা পাবে, যা প্রকারান্তরে গ্রাহকরাই ভোগ করবে বলে জানান আইএসপি ব্যবসায়ীরা।

এ বিষয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার শনিবার (৭ আগস্ট) রাতে গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা এর আগে এন্ড ইউজারদের (ইন্টারনেট ব্যবহারকারী) জন্য মূল্য বেঁধে দিয়েছিলাম। কিন্তু আইএসপিগুলো যে সেবা দেয়, তা আইআইজি ও এনটিটিএন অপারেটরের ওপর নির্ভরশীল। এজন্য আমাদের প্রতিশ্রুতি ছিল, দ্রুত এই দুটো সেবার দাম বেঁধে দেওয়া। আমাদের নিয়ন্ত্রক সংস্থা দ্রুততম সময়ের মধ্যে সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর সঙ্গে বৈঠক করে সেবা পরিবহন মূল্যের যে প্রস্তাবনা পাঠায়, তা আমরা দেখে অনুমোদন করে দিয়েছি।

আইআইজি’র জন্য বিভিন্ন ভলিউমে ১১টি স্লাবে ব্যান্ডউইথের মূল্য বেঁধে দেওয়া হয়েছে। অপরদিকে এনটিটিএন’র জন্য ট্রান্সমিশন ক্যাপাসিটির ভলিউম অনুযায়ী ১৫টি স্ল্যাবে সেবামূল্য বেঁধে দিয়েছে বিটিআরসি। 

এ বিষয়ে আইআইজি ফোরামের মহাসচিব আহমেদ জুনায়েদ বলেন, বিটিআরসি গত ১০-১২ বছর ধরে বিষয়টি নিয়ে চেষ্টা করছে। অবশেষে সফল হলো। এতে করে ব্যবহারকারীরা মান সম্মত সেবা পাবেন। ফলে সারাদেশে ইন্টারনেটে ‘এক দেশ এক রেট’ বাস্তবায়নের পথে আরও একধাপ অগ্রগতি হলো।

দেশে ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন আইএসপিএবির সভাপতি আমিনুল হাকিম এ প্রসঙ্গে বলেন, সরকার ‘এক দেশ এক রেট’ ঘোষণা করার পরও ঢাকার বাইরে জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়নে আইএসপি প্রতিষ্ঠানগুলো এই সেবা দিতে পারছিল না। তাদের ব্যান্ডউইথ ট্রান্সমিশন খরচ বেশি লাগত। সেবামূল্য বেঁধে দেওয়ার কারণে ঢাকার দামেই জেলা বা উপজেলায় অবস্থিত আইএসপি প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যান্ডউইথ পাবে। এতে ট্রান্সমিশন খরচ কমে আসবে।