advertisement
আপনি পড়ছেন

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ২৯ রানের দুর্দান্ত জয় পেয়েছে পাকিস্তান। বৃষ্টি আইনে প্রোটিয়াদের হারিয়ে নিজেদের বিশ্বকাপ স্বপ্ন দারুণভাবে টিকেয়ে রাখলো মিসবাহের দল। অথচ বিশ্বকাপের দুই ম্যাচ হেরে গ্রুপ পর্ব থেকেই প্রায় ছিটকে যাচ্ছিলো পাকিস্তানিরা।

অকল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ম্যাচে আগে ব্যাটিং করে ২২২ রান তুলে পাকিস্তান। বৃষ্টির কারণে ৫০ ওভার থেকে কেটে ফেলা হয় তিন ওভার। অর্থাৎ ৪৭ ওভার করে খেলা হয় ম্যাচটি।

বৃষ্টি আইনে প্রোটিয়াদের লক্ষ্য ১০ রান বেড়ে দাঁড়ায় ২৩২ রান। এই রান তাড়া করতে গিয়ে ২০২ রানে অলআউট হয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ফলে ২৯ রানের জয় পায় পাকিস্তান। পাকিস্তানের হয়ে তিনটি করে উইকেট মোহাম্মদ ইরফান, ওয়াহাব রিয়াজ ও রাহাত আলি। মূলত এই তিনজনের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের কারণেই ৩৪তম ওভারেই গুটিয়ে যায় প্রোটিয়ারা।

২৩২ রান তাড়া করতে নেমে শূন্য রানে প্রথম উইকেট হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা। মাত্র দুই বল খেলে কোনো রান না করেই বিদায় নেন কুইনটন ডি কক। মোহাম্মদ ইরফানের বলে উইকেট কিপারের কাছে ক্যাচ দেন তিনি। একইভাবে হাশিম আমলা ও ফ্যাফ ডু প্লেসিও বিদায় নেন। তাদেরকে আউট করেন ওয়াহাব রিয়াজ ও রাহাত আলি।

৭৭ রানের মধ্যে পাঁচ উইকেট হারিয়ে রীতিমতো কাঁপতে থাকে প্রোটিয়ারা। সেই কাঁপাকাঁপি আর থামেনি। শেষ পর্যন্ত ৩৪তম ওভারের তিন বলের মধ্যেই শেষ হয়ে যায় তাদের ইনিংস। ফলে ২৯ রানের দুর্দান্ত জয়ে বিশ্বকাপটা জমিয়ে দেয় পাকিস্তান।

ম্যাচসেরা নির্বাচিত হয়েছে সরফরাজ আহমেদ। ব্যাট হাতে ৪৯ রান করার পাশাপাশি ছয়টি ক্যাচ নেন তিনি। ফলে তাকে ছাড়া ম্যাচসেরার পুরস্কার দেওয়ার মতো কেউই ছিলো না। মজার ব্যাপার হলো এটিই সরফরাজের প্রথম বিশ্বকাপ ম্যাচ ছিলো।

পাকিস্তান বিশ্বকাপের প্রথম দুই ম্যাচে ভারত ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে হেরে বসে। ফলে গ্রুপ পর্ব থেকেই তাদের ছিটকে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দেয়। কিন্তু পরের তিন ম্যাচে পরপর তিন জয়ে দারুণভাবে নিজেদের টিকেয়ে রাখলেন মিসবাহরা। পাকিস্তান প্রথম জয় পায় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। পরে আরব আমিরাতের বিপক্ষেও সহজে জিতে তারা। তাদের সর্বশেষ জয় এলো এই বিশ্বকাপের হট ফেভারিট দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে। নিশ্চয় পাকিস্তানের সমর্থকরা নতুন করে নড়েচড়ে বসছেন এই জয়ের পর।

 

আপনি আরো পড়তে পারেন

জিম্বাবুয়ের লক্ষ্য ৩৩২ রান

চতুর্থ জয়ের সামনে ভারত