advertisement
আপনি দেখছেন

রকিবুল হাসানের স্বপ্ন ছিল একদিন বাংলাদেশের জার্সি গায়ে খেলতে নামবেন। তার পারফরম্যান্সে গ্যালারীতে করতালি হবে, বাংলাদেশ ম্যাচ জিতবে। কিন্তু বাস্তবতা তাকে পেীঁছে দিয়েছে ইতালিতে। পরিবারের অর্থনৈতিক হাল ধরতে প্রবাস জীবন বেছে নিতে হয়েছিল এই তরুণকে। তবে ক্রিকেট কিন্তু থেমে যায়নি। ইতালি জাতীয় দলের হয়ে এখন মাঠ মাতাচ্ছেন বাংলাদেশের রকিবুল।

rakibul hasan playing for italy

কুমিল্লা জেলার বরুড়া উপজেলায় জন্ম। কুমিল্লা অনূর্ধ্ব-১৭ ও অনূর্ধ্ব-১৮ দলে নিয়মিত পারফর্ম করে বিসিবির বয়সভিত্তিক দলেও সুযোগ পেয়েছিলেন। একটা সময় সৌম্য সরকার, মুমিনুল হক, এনামুল হক বিজয় সতীর্থ ছিল রকিবুলের।

কিন্তু ২০১১ সালে বাবা মারা যাওয়ার পর সব কিছু কঠিন হয়ে পড়ে। ক্রিকেটের খরচ যোগানোর মতো কেউই ছিলেন না, এদিকে পরিবারকে অর্থনৈতিক সমর্থন দেওয়াও দরকার হয়ে উঠেছিল। উপায়ন্তু না দেখে উপার্যনের লক্ষ্যে ইতালিতে পাড়ি জমাতে হয় রকিবুলকে।

সেখানে কাজের ফাঁকে স্থানীয়দের সঙ্গে ক্রিকেট খেলতেন। বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেট খেলে যাওয়া রকিবুলের ক্রিকেট প্রতিভার খবর ছড়িয়ে যেতে সময় লাগেনি। স্থানীয় বেলোনিয়া ক্রিকেট ক্লাব থেকে ডাক আসে। আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। সেখান থেকে পিয়ানোরা ক্রিকেট ক্লাবে ডাক পান। এই ক্লাব থেকে সরাসরি ইতালি জাতীয় ক্রিকেট দলে! এর আগে বৈধ্য নাগরিকত্বও পেয়ে যান রকিবুল।

বাংলাদেশের হয়ে খেলার স্বপ্ন দেখা ছেলেটি এখন নিয়মিতই ইতালিকে ম্যাচ জেতাচ্ছেন। গত জুনে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ইউরোপ অঞ্চলের বাছাইপর্বে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ইতালি। তাতে সবচেয়ে বড় অবদান ছিল রকিবুলের। এই মুহূর্তে ইতালির হয়ে ক্রিকেট ওয়ার্ল্ড কাপ চ্যালেঞ্জ লিগ খেলতে ব্যস্ত তরুণ ক্রিকেটার।

সর্বশেষ ম্যাচে বল হাতে ১০ ওভারে মাত্র ৩৪ রান খরচায় নিয়েছেন এক উইকেট। তারপর ব্যাট হাতে ২৯ বলে অপরাজিত ৪৭ রানের ইনিংস খেলে দলকে দারুণ জয় এনে দেন। অর্থনৈতিক সমস্যার কারণে বাংলাদেশের ক্রিকেটার হওয়ার স্বপ্ন ধুলিষ্যাত হয়েছে রকিবুলের। তাতে কী, ক্রিকেটার তো হতে পেরেছেন!