advertisement
আপনি দেখছেন

ভারত সিরিজটা একেবারেই বাজে কেটেছে ইমরুল কায়েসের। দুই টেস্টে তার চারটি ইনিংস ছিল যথাক্রমে ৬, ৬, ৪, ৫। সেই কারণেই হয়তো বিপিএলেও এবার অবমুল্যায়িত হলেন! গত চার বছর কুমিল্লায় খেলা ইমরুল এবার চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের ক্রিকেটার।মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের ইনজুরির কারণে একদিন আগে তাকে অধিনায়ক ঘোষণা করা হয়। কিন্তু টসের সময় বিস্মিত হতে হলো।

imrul kayes comilla

ইমরুল নয়, চট্টগ্রামের হয়ে টস করতে নামলেন যে উইন্ডিজের রায়াদ ইমরিত। ব্যাট হাতে এমন অবজ্ঞার উপযুক্ত জবাবই দিয়েছেন ইমরুল। বিপিএলের উদ্বোধনী ম্যাচে সিলেট থান্ডার্সের বিপক্ষে ৫ উইকেটে জিতেছে চট্টগ্রাম, তাতে ইমরুলের বড় অবদান।

সিলেটের ১৬২ রানের জবাব দিতে নেমে ২০ রানের মাথায় দুই উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে যায় চট্টগ্রাম। দারুণ খেলতে থাকা অভিষ্কার ফেরনান্দো (৩৩) ও রায়ান বার্ল (৪) যখন ফিরলেন চট্টগ্রাম তখন ৬৪/৪। ক্রমেই ম্যাচ থেকে ছিটকে যাচ্ছিল বন্দরনগরীর দলটি। দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলে সেখান থেকে চট্টগ্রামকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিয়েছেন ইমরুল।

চারে নেমে মাত্র ৩৮ বল খেলে ৬১ রানে যখন ফিরলেন চট্টগ্রামের জয় তখন অনেকটাই নিশ্চিত। ইমরুলের ইনিংসে চারের মার ছিল দুটি, ছক্কা পাঁচটি। দারুণ সঙ্গ পেয়েছেন ক্যারিবীয়ান ব্যাটসম্যান চ্যাডউইক ওয়ালটনের কাছ থেকে। ৩০ বলে ৪৯ রান করে অপরাজিত ছিলেন ওয়ালটন। চট্টগ্রাম ১৯ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে জয়ের জন্য ১৬৩ রান তুুলে ফেলে।

প্রথম ইনিংস:

প্রথম ইনিংসে সিলেটের ১৬২ রানের সংগ্রহে বড় অবদান ছিল মোহাম্মদ মিঠুনের। টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে সিলেটিদের শুরুও ভালো হয়নি। দলীয় ৫ রানের মাথায় ওপেনার রনি তালুকদারকে হারিয়ে বসে দলটি। তারপর তিনে নেমে দারুণ এক ইনিংস খেলে সিলেটকে বড় সংগ্রহ এনে দেন মিঠুন। মাত্র ৪৮ বলে ৪ চার ৫ ছয়ে ৮৪ রান করেছেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান। এছাড়া জনসন চার্লস করেন ২৩ বলে ৩৫ রান।

দুই দলের পরবর্তী ম্যাচ:

উদ্বোধনী ম্যাচ জেতা চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স আগামীকাল আবারও মাঠে নামবে। কাল দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে খুলনা টাইটানসের মুখোমুখি হবে দলটি। সিলেটের পরবর্তী ম্যাচ শুক্রবারে। দুপুর ২টায় রাজশাহী রয়্যালসের মুখোমুখি হবে সিলেট।