advertisement
আপনি দেখছেন

লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামের পিচ ছিল পুরো ব্যাটিং সহায়ক। কিন্তু তার পরও প্রথমে ব্যাটিং করে ১৪১ রানের বেশি তুলতে পারল না বাংলাদেশ। পরে জবাব দিতে নেমে পাকিস্তানিরাও তেড়েফুঁড়ে ব্যাট চালাতে পারেনি। যদিও শেষ ওভারে গিয়ে পাঁচ উইকেটে ম্যাচ জিতেছে পাকিস্তান। ম্যাচ শেষে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ বললেন, ১০-১৫ রান কম করেছে বাংলাদেশ। হারতে হয়েছে সেই কারণেই।

tamim nayeem at pakistan 71 run

বাংলাদেশের ইনিংসে ওপেনিং জুটিতে ৭১ রান তোলেন তামিম ইকবাল ও তরুণ নাঈম শেখ। ব্যাটিং উইকেটে এই রান তুলতে দুই জন খেলেছেন মূল্যবান ১১টি ওভার। যা নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা চলছে। যদিও শেষ পর্যন্ত এই ওপেনিং জুটিই ছিল বাংলাদেশ ইনিংসের সেরা মুহূর্ত। মাহমুদুল্লাহও বললেন তাই। তামিম-নাঈমের প্রসংশা করেন অধিনায়ক।

ম্যাচ শেষে মাহমুদুল্লাহ বলেন, ‘আমার মনে হয়, আমরা পাওয়ার প্লেতে যেভাবে ব্যাট করেছিলাম সেটা দারুণ ছিল। নাঈম আর তামিম খুব ভালো ব্যাটিং করেছে। বল যখন আস্তে আস্তে একটু পুরনো হচ্ছিলো তখন পিচের কন্ডিশনও বদলে যাচ্ছিলো। পরে যারা ব্যাট করেছে তাদের জন্য এসেই বড় শট খেলা কঠিন ছিল। তো আমার মনে হয়, ওই জায়গাতে আমরা একটু পিছিয়ে পড়েছি। ১০-১৫টা রান ওখানে একটু কম হয়ে গেছে। আমার মনে হয়, আমি একটু বেটার ফিনিশ করতে পারতাম। আমার পারসোনালি এটা ফিল হয়েছে।’

১৪১ রানের সংগ্রহ নিয়েও বাংলাদেশ ম্যাচটা টেনে নিয়ে গেছে শেষ ওভার অবদি। দারুণ বোলিং করেছেন আল-আমিন হোসেন ও শফিউল ইসলামরা। অধিনায়ক বোলারদের কথাও স্মরণ করলেন।

মাহমুদুল্লাহ বলেন, ‘এই রান নিয়েও আমরা শেষ পর্যন্ত ডিফেন্ড করতে পেরেছি। বোলারদের ভালো  এফোর্টের জন্যই। বোলাররা ভালো বল করলেও কিছু কিছু জায়গায় আমরা ইজি চার দিয়েছি। লেগ সাইডে আমরা ৬-৭টার মতো ইজি চার দিয়েছি। ওই জিনিসগুলো যদি আমরা একটু বেটার করতে পারতাম, প্লাস আমাদের ফিল্ডিংটা আরেকটু ভালো হলে ফলাফল অন্যরকম হতে পারতো।’