advertisement
আপনি দেখছেন

ইএসপিএন ক্রিকইনফোর স্কোরকার্ডে দেখা গেল দিনের খেলা বাকি আরও ৪১ ওভার। তবে ম্যাচ নিশ্চিত ড্র’য়ের দিকে এগুচ্ছিল বলে আর খেলা বাড়াতে চাইলেন না আম্পায়াররা। বাংলাদেশের তরুণ ব্যাটসম্যান আল-আমিনের সেঞ্চুরি পূর্ণ হবার পরই দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ ঘোষণা করেন আম্পায়াররা। অনুমিতভাবে ড্র’তেই নিষ্পত্তি হয়েছে বিসিবি একাদশ ও জিম্বাবুয়ের মধ্যকার দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচটি।

al amin tamim bcb xi

ড্র’য়ের ম্যাচে বাংলাদেশের তৃপ্তি অনেক। গতকাল ম্যাচের প্রথম দিনের দ্বিতীয় সেশনে বাংলাদেশি বোলিংয়ের আক্রমণাত্মক উপস্থাপনা দেখা গেছে। এক সেশনেই ছয় উইকেট তুলে নেন যুব বিশ্বকাপ জেতা শাহাদাত হোসেন, শরিফুল ইসলামরা।

আজ ব্যাটিংয়ে মুগ্ধ করলেন আল-আমিন ও অপর বিশ্বজয়ী তরুণ তানজিদ হাসান তামিম। কাল ২৯১ রানে দিন শেষ করা জিম্বাবুয়ে আজ ব্যাটিংয়ে নামেনি। নিজেদের প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে বিসিবি একাদশকে ব্যাটিংয়ে পাঠালে শুরুটা বেশ বাজেই হয়েছে স্বাগতিকদের।

৬৯ রানের মাথায় পঞ্চম উইকেট হারিয়ে বসে বিসিবি একাদশ। কিন্তু তারপর ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে দুই তরুণ তামিম ও আল-আমিন যা করে দেখালেন সেটা মুগ্ধ হবার মতো।

ক্রিজে নেমেই পাল্টা আক্রমণের পথ বেছে নেন তামিম। জিম্বাবুয়ান পেসারদের শরীর তাক করা বাউন্সারগুলোকে হুক পুল খেলে সীমানা ছাড়া করছিলেন। অপর প্রান্তে আল-আমিন ব্যাটিং করেছেন টেস্টের ব্যাকরণ মেনে। দুজনেই নিজ নিজ পরিকল্পনায় সফল হয়েছেন। দিনের খেলা শেষ হবার সময় দুজনের অবিচ্ছিন্ন জুটি পৌঁছে ২১৯ রানে!

সেঞ্চুরি পেয়েছেন দুজনই। আক্রমণাত্মক তামিম ৮৭ বলে সেঞ্চুরি পূর্ণ করে অপরাজিত ছিলেন ১২৫ রানে। ৯৯ বলে ১৪ চার ও ৫ ছয়ে ইনিংসটি সাজান তামিম। আল-আমিনের এক শ রানের ইনিংসটি ছিল ১৪৫ বলে গড়া, চারের মার ১৬টি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

জিম্বাবুয়ে ২৯১/৭, ওভার ৯০ (মাসভাউর ৪৫, কাসুজা ৭০, মুজিঙ্গানিয়ামা ১৭, আরভিন ১০, মারুমা ৩৪, চাকাভা ১৩, মুম্বা ৫৪*, লোভু ২৫*;
শরিফুল ১/৪৫, আল-আমিন ২/৪০, শাহাদাত ৩/১৬)।
৮-২-১৬-৩।

বিসিবি একাদশ ২৮৮/৫, ওভার ৫৯.৩ (নাঈম ১১, ইমন ৩৪, আল-আমিন ১০০*, তামিম ১২৫*; মুম্বা ১/৩৭, শুমা ১/২৩, লোভু ২/৫১, মুতোম্বোজি ১/৪৫)।

ফলাফল: ম্যাচ ড্র।

sheikh mujib 2020