advertisement
আপনি দেখছেন

জিম্বাবুয়ে সিরিজে ওয়ানডে-তে মাশরাফি বিন মর্তুজা কী খেলবেন? এমন প্রশ্ন তুলছিলেন প্রায় সবাই। কারণ অনেকদিন ক্রিকেটের বাইরে থাকার পর বঙ্গবন্ধু বিপিএল খেলতে নেমে সুবিধা করতে পারেননি। বিপিএলের পর আবারও ক্রিকেটের বাইরে আছেন। এদিকে, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডও (বিসিবি) চাইছে না আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলুক মাশরাফি। দিন যতো গড়াচ্ছিল প্রশ্নটা ততোই ছড়াচ্ছিল। আজ সব প্রশ্নের উত্তর দিয়ে দিলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

mashrafe papon

বিসিবি সভাপতি জানান, জিম্বাবুয়ে সিরিজের পর অধিনায়কত্ব থেকে বাদ দেওয়া হবে মাশরাফিকে। তারপর পারফর্ম করতে পারলে তবেই জাতীয় দলে টিকে থাকবেন বাংলাদেশ ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে সফল অধিনায়ক।

পাপন বলেন, ‘মাশরাফি এই সিরিজে অবশ্যই খেলবে, অধিনায়ক হিসেবেই খেলবে। তবে ফিট হলে তবেই। আগে তো বিপ টেস্ট ছিল না। এখন এটা পাশ করতে হয়। প্রথম কথা মাশরাফিকে বিপ টেস্টে পাশ করে আসতে হবে। ওর জন্য অতটা কড়াকড়ি করবো না।’

অধিনায়কত্ব থেকে বাদ পড়া মাশরাফিকে জাতীয় দলের হয়ে খেলতে হলে উপযুক্ত পারফর্ম করতে হবে বলেও জানালেন পাপন। তিনি বলেন, ‘যদি পারফরম্যান্স এবং ফিটনেস ঠিক থাকে তাহলে খেলতে তো কোনও সমস্যা নেই। কেউ যদি খেলে যেতে চায়, খেলবে। জাতীয় দলে চান্স পেতে হলে যা যা করতে হয়, সেগুলো মাশরাফি পূরণ করতে পারলে খেলতে তো কোনও সমস্যা নেই।’

মাশরাফিকে কেন এভাবে ছেঁটে ফেলা তার ব্যাখ্যায় বিসিবি সভাপতি বললেন, ‘সামনের ওয়ানডে বিশ্বকাপ বলে আমাদের দল গোছাতে হবে। একজন অধিনায়কও ঠিক করতে হবে। বিশ্বকাপের আগে অন্তত দুই বছর যেন ওই অধিনায়কের নেতৃত্বে দলটা খেলতে পারে সেটার চিন্তা করছি। ফলে খুব দ্রুত আমরা ওয়ানডেতে নতুন অধিনায়কের নাম ঘোষণা করবো। সম্ভবত আগামী ৭-৮ তারিখে বোর্ড সভায় এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হবে।’

বিসিবি সভাপতি মনে করছেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে বিদায় নেওয়ার সময় হয়ে গেছে মাশরাফির, ‘আমি সব সময়ই বলি সাকিবের মতো বদলি খেলোয়াড় আমাদের নেই, আবার মাশরাফির মতো অধিনায়ক আমাদের নেই। এটা মনে রাখতে হবে বাংলাদেশের ক্রিকেটে যেভাবে টার্নওভার করেছে তাতে সবচেয়ে বড় অবদান মাশরাফির। তার নেতৃত্ব ছিল অসাধারণ। আবার এটাও ঠিক ওর (মাশরাফির) সময় এসেছে সিদ্ধান্ত নেওয়ার, আর কতদিন খেলবে।’

এদিকে, আপাতত যাকেই অধিনায়ক করা হোক, সাকিব আল হাসান নিষেধাজ্ঞা থেকে ফিরলে তার কাঁধেই যে অধিনায়কত্ব যাবে সেটাও ইঙ্গিত দিয়ে রাখলেন পাপন।

তিনি বলেন, ‘অবশ্যই, কেন নয়। সাকিব যেমন ফর্মে ছিল তেমন ফর্মে যদি ফিরে আসে তবে অবশ্যই সে অধিনায়ক হবে।’

sheikh mujib 2020