advertisement
আপনি দেখছেন

প্রথম দিনের শেষ বিকেলের স্বস্তি। সেঞ্চুরিয়ান ক্রেইগ আরভিনকে সাজঘরে পাঠিয়ে ম্যাচে ফিরেছিল বাংলাদেশ। আজ দ্বিতীয় দিন সাতসকালেই চালকের আসনে বসে পড়ল টাইগাররা। এদিন জিম্বাবুয়েকে গুটিয়ে দিতে মুমিনুলদের লাগল মোটে ৯৯ বল। ৩৭ রানে সফরকারীদের বাকি চার উইকেট তুলে নেয় বাংলাদেশ।

tamim and shanto sprint across for a run

মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়েকে প্রথম ইনিংসে ২৬৫ রানে থামিয়েছে টাইগাররা। জবাব দিতে নেমে তিন উইকেটে ২৪০ রানে দিনের খেলা শেষ করেছে বাংলাদেশ। প্রথম দিনের মতো আজ দ্বিতীয় দিনও আবু জায়েদ রাহির হাত ধরে শুরুর সাফল্য পেয়েছে বাংলাদেশ। সবমিলিয়ে চার উইকেট নিয়েছেন রাহি। আগের দিন চার উইকেট নেওয়া নাঈম হাসান আজ উইকেট পাননি।

গতকাল ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনে খরায় ভোগা তাইজুল ইসলাম পেয়েছেন বাকি দুই উইকেট। এই ত্রয়ীর দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে অল্পতেই থামিয়ে দেওয়া গেল জিম্বাবুয়েকে। এদিন সফরকারীদের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩০ রান করেন রেজিস চাকাভা। পরে বোলারদের এনে দেওয়া মঞ্চে আলো ছড়ালেন ব্যাটসম্যানরা। ইনিংস শুরুর জড়তা কাটিয়ে দ্বিতীয় দিন শেষে বাংলাদেশ আভাস দিল রানপাহাড়ের।

বড় সংগ্রহে ব্যাট হাতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন মুমিনুল হক সৌরভ। দিন শেষ করেছেন সেঞ্চুরির আভাস নিয়ে। ৭৯ রানে অপরাজিত ছিলেন মুমিনুল। তার সঙ্গী মুশফিকুর রহিম ৩২ রানে অজেয় থেকে দিন শেষ করেছেন। ১৭২ রানে তৃতীয় উইকেট পতনের পর এই দুজনই দলকে চালকের সুবিধাজনক অবস্থানে নিয়ে যান।

তবে শতকের সম্ভাবনা জাগিয়ে ৭১ রানে সাজঘরে ফিরে গেছেন নাজমুল হোসেন শান্ত। টিসুমার বলে উইকেটের পেছনে রেজিস চাকভার গ্লাভসে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নিয়েছেন এই তরুণ ব্যাটসম্যান। সাজঘরে ফেরা বাংলাদেশের অন্য দুই ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল ও সাইফ হাসানের পদাঙ্ক অনুকরণ করেছেন শান্ত। তামিম আউট হন ৪১ রানে। আট রানে ফিরেছেন উদ্বোধনী জুটিতে তার সঙ্গী সাইফ।

sheikh mujib 2020