advertisement
আপনি দেখছেন

ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে হেরে গেল দক্ষিণ আফ্রিকা। যে দুটি ম্যাচে প্রোটিয়ারা হেরেছে দুটোতেই নাজেহাল অবস্থা হয়েছে তাদের। প্রথমটিতে টি-টোয়েন্টিতে নিজেদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ১০৭ রানে হেরেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। কাল তৃতীয় ম্যাচে তারা হারল ৯৭ রানের বিশাল ব্যবধানে।

starc castled de kock

দুটো ম্যাচেই দক্ষিণ আফ্রিকাকে ভুগিয়েছে ব্যাটিং বিভাগ। সিরিজ শুরুর ম্যাচে ৮৯ রানে গুটিয়ে গিয়েছিল প্রোটিয়ারা। যা কুড়ি ওভারের ক্রিকেটে তাদের সর্বনিম্ন সংগ্রহ। বুধবার রাতেও যথারীতি ভয়ঙ্কর ব্যাটিং বিপর্যয় হলো স্বাগতিকদের। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে এবার ৯৬ রানে অল আউট হলো দক্ষিণ আফ্রিকা। টি-টোয়েন্টিতে এনিয়ে তৃতীয়বার রান সংখ্যায় তিন অংক ছুঁতে পারল না দলটি।

স্বাগতিকদের বাজে ব্যাটিংয়ে অনেকটাই আড়াল হয়ে গেল স্টিভেন স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নারের কেপটাউনে ফেরার প্রসঙ্গটা। নিউল্যান্ডসের এই মাঠেই বল টেম্পারিং করে ১২ মাসের নির্বাসন পেয়েছিলেন স্মিথ-ওয়ার্নার। কাল সেই মাঠেই দুজন ফিরলেন। ব্যাট হাতে দুজনই জ্বলে উঠলেন। এর সঙ্গে অ্যারন ফিঞ্চের বিস্ফোরক ব্যাটিং।

এই ত্রয়ীর বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ের সুবাদে নির্ধারিত কুড়ি ওভারে পাঁচ উইকেটে ১৯৩ রানের বিশাল সংগ্রহ তোলে অস্ট্রেলিয়া। জবাব দিতে নেমে ম্যাচের ২৭ বল বাকি থাকতেই গুটিয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা। স্বাগতিকদের ধসিয়ে দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ান দুই বোলার মিচেল স্টার্ক ও অ্যাস্টন অ্যাগার। প্রথমজন টপ অর্ডার এবং দ্বিতীয়জন প্রোটিয়াদের লোয়ার অর্ডার গুঁড়িয়ে দেন।

১৫ বলে ২৩ রান দিয়ে তিন উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা হয়েছেন স্টার্ক। চার ওভারে ১৬ রান দিয়ে তিন উইকেট নিয়েছেন অ্যাগারও। তিন ওভারে দশ রান খরচায় দুই উইকেট নিয়ে দলের জয়ে অবদান রাখলেন অ্যাডাম জাম্পা-ও। খালি হাতে পেলেননি প্যাট কামিন্স, মিচেল মার্শও। সবমিলিয়ে এদিন বোলিংয়ে দুর্দান্ত সমণ্বয় দেখা গেল অস্ট্রেলিয়ানদের।

টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে উড়ন্ত সূচনা করে অস্ট্রেলিয়া। দ্বাদশ ওভার শেষ হওয়ার আগেই বিনা উইকেটে ১২০ রান করে অজিরা। দুই ওপেনার ওয়ার্নার এবং ফিঞ্চ দুজনই তুলে নিয়েছেন অর্ধশতক। ওয়ার্নার ৫৭ এবং অধিনায়ক ফিঞ্চ ৫৫ রানের ঝড় তুলে আউট হয়েছেন। দুজনই খেলেছেন সমান ৩৭টি বল। শেষ দিকে এসে তাণ্ডব চালিয়েছেন স্মিথ। ১৫ বলে ৩০ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি।

১৯৪ রানের কঠিন লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ২৩ রানের মধ্যে কুইন্টন ডি কক ও ফ্যাফ ডু প্লেসির উইকেট হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা। পরে রসি ফন ডার ডুসেন ও হেনরিক ক্লাসেন প্রতিরোধ গড়েন। তৃতীয় উইকেটে দুজন মিলে করেন ৩৭ রান। যা ইনিংসে প্রোটিয়াদের সর্বোচ্চ রানের জুটি। এই জুটি ভাঙতেই তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে স্বাগতিকদের ব্যাটিং লাইন।

ডুসেন ২৪ এবং ক্লাসেন ২২ রানে আউট হন। এ ছাড়া ডেভিড মিলার ১৫ এবং ডোয়াইন প্রিটোরিয়াস ১১ রান করেছেন। বাকি সাতজনের কেউ যেতে পারেননি দুই অংকে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

অস্ট্রেলিয়া: ২০ ওভার, ১৯৩/৫

দক্ষিণ আফ্রিকা: ১৫.৩ ওভার, ৯৬/১০

ফল: অস্ট্রেলিয়া ৯৭ রানে জয়ী

সিরিজ: অস্ট্রেলিয়া ২-১ ব্যবধানে জয়ী

ম্যাচ সেরা: মিচেল স্টার্ক (অস্ট্রেলিয়া)

সিরিজ সেরা: অ্যারন ফিঞ্চ (অস্ট্রেলিয়া)