advertisement
আপনি পড়ছেন

অবশেষে জয়ের দেখা পেল বায়ার্ন মিউনিখ। দুই ম্যাচ হারার পর আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় চেলসির বিপক্ষে ৩-২ গোলের ব্যবধানে জিতেছে জার্মানির ক্লাবটি।

bayern munich chelsea

মৌসুম শুরুর আগ মুহূর্তে ‘অনুশীলন’ হিসেবে ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়নস কাপ খেলছে ক্লাবগুলো। কিন্তু বায়ার্নের ‘অনুশীলন’ ঠিকঠাক হচ্ছিলই না। প্রথম ম্যাচে টাইব্রেকারে আর্সেনালের বিপক্ষে হার।

সেটা না হয় মেনে নেয়া গেল, কিন্তু পরের ম্যাচে শক্তির বিচারে অনেকটা পিছিয়ে থাকা এসি মিলানের বিপক্ষে যেভাবে হেরে গেল জার্মানির সবচেয়ে শক্তিশালী দলটা সেটা মেনে নিতে পারেননি সমর্থকরা। মিলানের বিপক্ষে ৪-০ গোলে হেরেছিল বায়ার্ন। আজ টুর্নামেন্টের তৃতীয় ম্যাচে এসে জয় উদযাপন করার সৌভাগ্য হলো দলটির।

ব্যবধান দেখেই মনে হচ্ছে জয় পেতে বড্ড বেগ পেতে হয়েছে বায়ার্নকে। ম্যাচের হয়েছেও তাই। যদিও একটা সময় ৩-০ গোলে এগিয়ে ছিল কার্লো আনচেলত্তির দল। ম্যাচের ৬ মিনিটে রাফিনহোর গোলে এগিয়ে যায় বায়ার্ন। ১২ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন থমাস মুলার। ২৭ মিনিটে গিয়ে আর মুলারের আর একটা গোল, ৩-০।

ম্যাচের আধা ঘণ্টা না যেতেই ৩-০! তখন মনে হচ্ছিল, কপালে বুঝি ‘শনি’ আছে আজ চেলসির। কিন্তু তারপর কী দারুণভাবেই না ঘুরে দাঁড়াল চেলসি। গত মৌসুমে প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা জিতেছে চেলসি। প্রথম আধা ঘণ্টার পর কাল খেলা দেখাল চ্যাম্পিয়নদের মতোই।

প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে মার্কো আলোনসোর গোলে ব্যবধান (৩-১) কমায় চেলসি। দ্বিতীয়ার্ধে ম্যাচ যেভাবে এগোচ্ছিল মনে হচ্ছিল, যে কোনো কিছুই ঘটতে পারে। ম্যাচের ৮৫ মিনিটে আর একটি গোল পরিশোধ করে সেই সম্ভাবনাও তৈরি করেছিল চেলসি। কিন্তু এরপর আর গোল না পাওয়ায় শেষ পর্যন্ত ৩-২ গোলের হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে অ্যান্থনিও কান্তের দলকে।