advertisement
আপনি পড়ছেন

তাকে নিয়ে দলবদলের বাজারে রীতিমতো হুলুস্থুল লেগে গেছে। নেইমার সেটা আরো বাড়িয়ে দেওয়ার পণ করেছেন কিনা কে জানে! প্রাক মৌসুম প্রস্তুতিতে রীতিমতো  মাঠে ফুল ফুটাচ্ছেন ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টার। ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন্স কাপের প্রথম ম্যাচে জোড়া গোল করে জুভেন্টাসকে অনেকটা একাই হারিয়েছিলেন। জোড়া গোলের চেয়ে আলোচনা ছড়িয়েছে মাঠে যেভাবে দাপট দেখিয়েছিলেন নেইমার। আজও তার ঠিক পূণরাবৃত্তি। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে ১-০ গোলে জিতেছে বার্সেলোনা। বার্সার গোলটি এসেছে নেইমারের পা থেকেই।

neymar messi vs manu

আগের ম্যাচে শুরু একাদশে ছিলেন না লুইস সুয়ারেজ। কিন্তু ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে মেসি-সুয়ারেজ-নেইমার তিনজনকেই প্রথম থেকে খেলিয়েছেন বার্সেলোনা কোচ ভালভারদে। দুই পাশে মেসি-নেইমার, মাঝখানে লুইস সুয়ারেজ।

বার্সার ত্রিনক্ষত্রের মধ্যে ম্যাচের পুরোটা সময় আলো থাকল নেইমারের উপরই। বাঁ-পাশ থেকে একের পর এক আক্রমণ সাজিয়ে নাভিশ্বাস তুলে ছেড়েছেন ম্যানচেস্টার ডিফেন্ডারদের। ম্যাচের প্রথম দিকে অবশ্য আধিপত্য দেখিয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডই।

আগের ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদকে হারিয়ে দেওয়ার আত্মবিশ্বাস নিয়ে শুরু দিকে বার্সেলোনার উপর ঝাঁপিয়ে পড়তে চেয়েছে হোসে মরিনহোর দল। পল পগবা, লুকাকুরা একের পর এক আক্রমণ করে গেছে। তবে কাজ হয়নি। প্রথম আধঘন্টার পরই ম্যাচের গতিপথ পরিবর্তন করতে হাজির হলেন নেইমার।

৩১ মিনিটে লিওনেল মেসির পাস যখন নেইমারের কাছে গেল সামনে ম্যানইউর এক ডিফেন্ডার। পাশে লুইস সুয়ারেজ এবং ম্যানইউর আরো দুই ডিফেন্ডার, শট নেওয়ার সুযোগ নেই। তারপরও নেইমারকে কি আর রোখা যায়! তিনি যে স্বপ্নময় ফুটবল খেলবেন বলে পণ করেছেন!

বল নিয়ে তড়িৎ ৩৬০ ডিগ্রি ঘুরে জায়গা বের করে নিলেন প্রথমে, তারপর দেখেশুনে কোনায় শট, গোল। ১-০ গোলে এগিয়ে যায় বার্সেলোনা। এই গোলের পর আর গোল করতে পারেনি বার্সেলোনা। আর এই গোলের পর গতি কমিয়ে যাওয়া ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডও গোলের দেখা পায়নি। যাতে শেষ পর্যন্ত ১-০ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে বার্সেলোনা।