advertisement
আপনি পড়ছেন

তিন দিন পর বড়সড় একটা পরীক্ষায় নামতে যাচ্ছে বার্সেলোনা। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোর ম্যাচে চেলসির মুখোমুখি হবেন লিওনেল মেসি, লুইস সুয়ারেজরা। স্ট্যাম্পফোর্ড ব্রিজে যাওয়ার আগে ‘প্রস্তুতি’টা বেশ ভালোই হলো কাতালান ক্লাবটির। আজ স্প্যানিশ লা লিগার ম্যাচ খেলতে এইবারের মুখোমুখি হয়েছিল বার্সা। লুইস সুয়ারেজ ও জর্দি আলবার গোলে ম্যাচটা ২-০ ব্যবধানে জিতেছে কাতালান ক্লাবটি।

eibar vs barcelona

এই জয়ে একটা রেকর্ডও ছোঁয়া হয়ে গেল বার্সেলোনার। চলতি মৌসুমে এ নিয়ে লিগে টানা ৩২ ম্যাচ অপরাজিত থাকল কাতালান ক্লাবটি। এর আগে একবারই এমন ফর্ম দেখাতে পেরেছে বার্সা। ২০১০-১১ মৌসুমে পেপ গার্দিওলার সেই দুরন্ত বার্সেলোনা লিগে টানা ৩২ ম্যাচ অপরাজিত ছিল।

গার্দিওলার বার্সেলোনাকে ছোঁয়ার ম্যাচে ভালভার্দের বার্সেলোনার হয়ে আজ গোল পাননি দুর্দান্ত ফর্মে থাকা লিওনেল মেসি। তবে লুইস সুয়ারেজের করা ম্যাচের প্রথম গোলটা মেসিরই বানিয়ে দেওয়া। ম্যাচের ১৬ মিনিটে সুয়ারেজকে দুর্দান্ত এক পাস দেন মেসি, যেটা ধরে গোলক্ষককে কাটিয়ে দলকে ১-০ তে এগিয়ে নেন সুয়ারেজ।

গোল হজম করতে হলেও ম্যাচের শুরুর দাপট কিন্তু এইবারেরই বেশি ছিল। ঘরের মাঠে চেনা দর্শকের সামনে বার্সেলোনার চোখে চোখ রেখে লড়ছিল দলটি। ম্যাচে ৪৭ শতাংশ বলের দখল ধরে রাখার পরিসংখ্যানই বলে দিচ্ছে বিষয়টা। ম্যাচের ৬৬ মিনিটে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড পেয়ে মাঠ ছেড়েছেন এইবারের ওরিয়ানো। তারপরই কেবল পূর্ণ দাপট দেখাতে পেরেছে বার্সা। কাতালান ক্লাবটির দুই নম্বর গোলটি ওই দশ জনের এইবারের বিপক্ষেই।

৮৮ মিনিটে আক্রমণের শুরুটা করেছিলেন কুতিনহো। তার দারুণ এক ক্রস ধরে বক্সে বল বাড়ান অ্যালেক্স ভিদাল। সেখানে জোরালো এক শট নিয়েছিলেন মেসি। কিন্তু ঠেকিয়ে দেন এইবার গোলরক্ষক। তবে মেসিকে প্রতিহত করলেও বল বিপদমুক্ত করতে পারেননি এইবার গোলক্ষক। বল গিয়ে পড়ে জর্দি আলবার সামনে। সহজ সুযোগ কাজে লাগাতে ভুল করেননি স্প্যানিশ ডিফেন্ডার অর্থা, ২-০ গোলে এগিয়ে যায় বার্সেলোনা। ম্যাচের শেষ বাঁশি বাজার আগ পর্যন্ত এই ব্যবধানের আর পরির্তন হয়নি। শেষ পর্যন্ত ২-০ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছেড়েছে বার্সেলোনা।