advertisement
আপনি পড়ছেন

এই তো সেদিন ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে এলেন অ্যালেক্সিস সানচেজ। তিন মাসও পুরোপুরি হয়নি। এরই মধ্যে ম্যানচেস্টার ইউনাউটেড ছাড়ার আভাস দিলেন বার্সেলোনার সাবেক চিলিয়ান স্ট্রাইকার।

sanchez not happy in manu

আর্সেনাল ছেড়ে ইউনাইটেডে আসাটা যে একটা ভুল সিদ্ধান্ত ছিল সেটা এখন বুঝতে পারছেন সানচেজ। কোনোভাবেই রেড ডেভিলসদের সঙ্গে খাপ খাওয়াতে পারছেন না তিনি। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে আসতে না আসতে নতুন ঠিকানার খোঁজও শুরু করে দিয়েছেন আক্রমণভাগের এই সারথি।

ম্যানইউতে আসার পর এই পর্যন্ত সানচেজের অর্জন বলতে মাত্র এক গোল। সানচেজের বিশ্বাস অন্য কোনো ক্লাবে গেলে হয়তো আরো ভালো কিছু করতে পারবেন তিনি। এনিয়ে মানসিকভাবে কিছুটা হলেও বিপর্যস্ত সানচেজ।

গেল ট্রান্সফার উইন্ডোতে হেনরিক মিখিতারিয়ানকে বিক্রি করে সানচেজকে দিয়ে তার শূণ্যস্থান পূরণ করেছেন ইউনাইটেড কোচে হোসে মরিনহো। পর্তুগিজ কোচ নিজেও স্বীকার করলেন সানচেজকে উড়িয়ে আনার জন্য এটা উপযুক্ত সময় ছিল না।

চিলিয়ান স্ট্রাইকারও বিষয়টা ভালোভাবেই বুঝতে পারছেন। মৌসুম শেষেই তাই অন্যত্র চলে যাচ্ছেন তিনি। ইতোমধ্যেই ক্লাবের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার সিটির সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করে দিয়েছেন সানচেজ। এ যাত্রায় তাকে সহায়তা করছেন জাতীয় দলের অধিনায়ক ও সিটি গোলরক্ষক ক্লাউদিও ব্রাভো।

অথচ ইউনাইটেডে আসার আগে কত স্বপ্নেরই না জাল বুনেছিলেন সানচেজ। কিন্তু তার প্রত্যাশাটা একটু বেশিই ছিল। সেটা এখন বলছেন চিলিয়ান সেনসেশন, ‘আমি অনেক কিছুই আশা করেছিলাম নিজেকে নিয়ে। ভেবেছিলাম আরো ভালো করতে পারব। কিন্তু এখানে আসার পর বুঝতে পারলাম এত দ্রুত চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করা কঠিন।’

সুইডেনের সঙ্গে প্রীতি ম্যাচ খেলতে আপাতত জাতীয় দলের ক্যাম্পে আছেন সানচেজ। ম্যাচটি শুক্রবার। তার আগে বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমের সামনে সাম্প্রতিকালের হতাশা তুলে ধরেন সানচেজ।