advertisement
আপনি পড়ছেন

নিশ্চিত পরজয়ই চোখ রাঙাচ্ছিল ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নদের। কিন্তু ম্যাচের শেষ মুহূর্তে জ্বলে ওঠেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। অধিনায়কের দুই মিনিটের জাদুতে শুক্রবার মিশরের বিপক্ষে ২-১ গোলের নাটকীয় জয় তুলে নেয় পর্তুগাল।

ronaldo scored twice as portugal beat egypt

দলের মানদণ্ড বিচারে কোনোভাবেই মিশরের সঙ্গে তুলনা চলে না পর্তুগালের। তবু এই ম্যাচটা ফুটবলপ্রেমীদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল। কারণ ইউরোপ মাতানো দুই তারকা ফুটবলার রোনালদো এবং মোহাম্মদ সালাহ যে মুখোমুখি!

এ যুগলের ব্যক্তিগত নৈপুণ্য প্রদর্শনের লড়াইটি গড়ে দিতে পারে ম্যাচের ভাগ্য। দলীয় লড়াই ছাপিয়ে তাই নজরে ছিলেন তারা দুজনই। অনুমানটাই সত্যি হলো। শুক্রবার জুরিখে রোনালদো-সালাহ রোমাঞ্চকর একটা দ্বৈরথ উপহার দিলেন দর্শকদের।

যেখানে জয় হলো রোনালদো ও পর্তুগালের। দুই মিনিটের জাদুতে পাশার দানটাই উল্টে দিলেন রিয়াল মাদ্রিদ উইঙ্গার। তাও আবার এমন সময় ‘সিআর সেভেন’ গোল দুটো করলেন যখন ম্যাচটা প্রায় হারতে বসেছে পর্তুগাল।

৫৬ মিনিটে সালাহার ট্রেডমার্ক বাঁ-পায়ের গোলে জয়ের স্বপ্নই দেখছিল মিশর। নির্ধারিত দেড় ঘণ্টা সময়ও শেষ হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু আফ্রিকান জায়ান্টদের বাড়া ভাতে ছাই ছড়িয়ে দেন রোনালদো। ম্যাচের পুরো সময় নিজের ছায়া হয়ে থাকা পর্তুগিজ উইঙ্গার গর্জে উঠলেন ইনজুরি টাইমে!

যোগ করা সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে মিশরের জাল কাঁপিয়ে পর্তুগালকে সমতায় ফেরান রোনালদো। ম্যাচের শেষ বাঁশি বাজার উপক্রম, ঠিক এই সময়ে দ্বিতীয় গোলটা করে বসেন পর্তুগালের বর্ষসেরা খেলোয়াড়! তার এমন জাদুময় পারফর্মের কাছে হারতে হয় সালাহকে। 

প্রীতি ম্যাচটাতে মিশরের যত ভয় ছিল ফর্মের তুঙ্গে থাকা এই রোনালদোকে নিয়েই। প্রতিপক্ষ কাণ্ডারীকে পুরো সময় আটকে রেখেও শেষ দুই মিনিটে আর তা সম্ভব হয়নি।

দুই মিনিটের মধ্যে ডাবলস নৈপু্ণ্য দেখিয়ে রোনালদো শুধু পর্তুগালকেই জেতাননি, ১৪৮তম ম্যাচটি খেলতে নেমে ব্যক্তিগতভাবে গড়েছেন দারুণ একটা রেকর্ড। এদিন আন্তর্জাতিক ফুটবল ক্যারিয়ারের ৮১তম গোল করেছেন তিনি। তাতেই রোনালদো ছাড়িয়ে গেছেন জাপানের কুনিশিগি কামামোতোকে (৮৪ ম্যাচে ৮০ গোল)।

সারা বিশ্বের জাতীয় দলের গোল স্কোরারদের তালিকায় রোনালদো উঠে এসেছেন তিন নাম্বারে। তার সামনে আছেন এখন শুধুই দুজন- হাঙ্গেরির ফেরেঙ্ক পুসকাস (৮৯ ম্যাচে ৮৪ গোল) ও ইরানের আলি ডায়ি (১৪৯ ম্যাচে ১০৯ গোল)। যেভাবে ছুটছেন রোনালদো তাতে হয়তো একদিন সবাইকে ছাড়িয়ে উঠে যাবেন অনন্য উচ্চতায়।