advertisement
আপনি পড়ছেন

ফর্ম ও আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে থাকা রোনালদো একটা ম্যচে থাকলেন নিষ্প্রভ, তাতেই হারতে হলো তার দেশ পর্তুগালকে। সোমবার রোনালদোকে নিষ্ক্রীয় করে পর্তুগালকে মাটিতে নামিয়ে এনেছে নেদারল্যান্ডস। এ দিন ডাচ ফুটবলের কাছে ইউরোপ সেরা দলটি অসহায় আত্মসমর্পণই করলো, পর্তুগাল হারলো ৩-০ ব্যবধানে।

ronaldo frustated in pitch

অথচ তিন দিন আগে রোনালদোর দুই মিনিটের জাদুতে মিশরকে ২-১ গোলে নাটকীয়ভাবে হারিয়েছিল পর্তুগাল। কিন্তু রূপকথা যে প্রতিদিন হয় না সেটা এদিন বুঝে গেল তারা।

জেনেভার এই মহারণের আগেই অবশ্য নেদারল্যান্ডস কোচ ফর্মেশন বদলে মাঠে নামার অগ্রিম ঘোষণা দিয়েছিলেন। রোনালদোকে থামানোর বিশেষ ছকের কথাও বলেছিলেন ডাচ কোচ রোনাল্ড কোম্যান।

পূর্ব পরিকল্পনার পূর্ণ প্রতিফলন ঘটালেন তিনি। বোতলবন্দি করে রাখলেন রোনালদোকে। যার ফলে টানা নয় ম্যাচে গোল করার পর গোলশূন্য হয়ে মাঠ ছাড়তে হলো বর্ষসেরা ফুটবলারকে। আর তাতেই ডাচদের কোচ হিসেবে প্রথম জয় তুলে নিলেন কোম্যান। হোক না সেটা প্রীতি ম্যাচ!

সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় ম্যাচটা প্রথমার্ধেই প্রায় একপেশে বানিয়ে ফেলেছিল আধুনিক ফুটবলের জনক নেদারল্যান্ডস। ১১ মিনিটে মেম্পিস ডিপেই বুলেট গতির শটে পর্তুগালের জাল কাঁপান। ২১ মিনিটের ব্যবধানে হেডে স্কোর লাইন ২-০ করে বসেন রায়ান বাবেল। বিরতির আগ মুহূর্তে পর্তুগিজদের কফিনে শেষ পেড়েকটি ঠুকে দেন ভার্জিল ফন ডিক।

নিশ্চিত পরাজয়ের ম্যাচে পর্তুগালের ফেরার যে ক্ষীণ একটা সম্ভাবনা ছিল সেটাও উবে গেছে ম্যাচের বয়স এক ঘণ্টা হওয়ার পরপরই। ৬১ মিনিটে পর্তুগিজ ডিফেন্ডার হোয়াও কানসেলো দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন। অবশ্য দশ জনে পরিণত হওয়া ইউরো চ্যাম্পিয়নদের বিপক্ষে শেষের ফায়দাটা লুটতে পারেনি ডাচরা।

হতাশার ম্যাচে ৬৮ মিনিটে প্রাণভোমরা রোনালদোকে মাঠ থেকে তুলে নেন পর্তুগাল কোচ ফার্নান্দো সান্তোস। রোনালদো মাঠ থেকে উঠে যাওয়ার পর কিছুটা গা ঝাড়া দিয়ে উঠেছিল পর্তুগাল। কিন্তু কয়েকটা সুযোগ পেয়েও ব্যবধান কমাতে পারেননি সান্তোসের শিষ্যরা। তাই বিধ্বস্ত হয়েই মাঠ ছাড়তে হলো পর্তুগালকে।